মঙ্গলবার, ০৯ অগাস্ট ২০২২, ০৭:৩৮ অপরাহ্ন
বিজ্ঞপ্তিঃ

হ্যাঁ, এলাকা আমার, খবর আমার, পত্রিকা আমার। সাফল্যের ২ বছর শেষে ৩ তম বছরে দৈনিক পার্বত্য কন্ঠ। নতুন বাংলাদেশ গড়ার প্রত্যয়ে সবচেয়ে বেশি স্থানীয় সংস্করন নিয়ে "দৈনিক পার্বত্য কন্ঠ" বিশ্লেষন আমাদের, সিদ্ধান্ত আপনার। দৈনিক পার্বত্য কন্ঠ পত্রিকায় শুন্য পদে সংবাদদাতা নিয়োগ চলছে। আপনার এলাকায় শুন্য পদ রয়েছে কিনা জানতে কল করুনঃ 01647627526 অথবা ইনবক্স করুন আমাদের পেইজে। ভিজিট করুনঃ parbattakantho.com দৈনিক পার্বত্য কন্ঠ। সত্য প্রকাশে সাহসী যোদ্ধা আমরা নতুন বাংলাদেশ গড়বো

২৪ বছরেও ভূমি জরিপ হয়নি পার্বত্য চট্টগ্রামে

নিজস্ব প্রতিবেদক:
  • প্রকাশিত : মঙ্গলবার, ৭ ডিসেম্বর, ২০২১
  • ২৫৩ জন পড়েছেন

পাহাড়ি সন্ত্রাসীদের বাধা: তিন পার্বত্য জেলা রাঙ্গামাটি, খাগড়াছড়ি ও বান্দরবানে ২৪ বছরেও ভূমি জরিপ কাজে শুরু থেকেই বাধা দিয়ে আসছে পাহাড়ি সশস্ত্র সন্ত্রাসী গ্রুপগুলো। সংশ্লিষ্টরা জানান, ভূমি জরিপের কাজ শুরু করতে গেলে সন্ত্রাসীরা কর্মকর্তাদের অপহরণ করে নিয়ে যায়। পরে নানা চেষ্টা তদবির করে তাদের উদ্ধার করা হয়।

এ কারণে ভূমি জরিপ বন্ধ রয়েছে। অথচ দেশের বাকি জেলার সব উপজেলায় ভূমি জরিপ কার্যালয় আছে। সেখানে এসি ল্যান্ডের নেতৃত্বে ভূমিসংক্রান্ত কার্যক্রম পরিচালিত হয়ে আসছে। অধিকাংশ পাহাড়ি এই অচলাবস্থা মানতে পারছেন না। একারণে তাদের মধ্যেও অসন্তোষ আছে।

পার্বত্য চট্টগ্রাম উন্নয়ন বোর্ডের চেয়ারম্যান নিখিল কুমার চাকমা বলেন, ভূমি জরিপের দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তাদের অপহরণ করে সন্ত্রাসীরা কাজ বন্ধ করে দিয়ে পাহাড়িদের ক্ষতি করেছে। কোথাও ভুল হলে তা তারা ধরিয়ে দিতে পারতো। কাজ বন্ধ করে দিয়ে অচলাবস্থা সৃষ্টি করলে সমাধান আসবে না। স্থানীয় প্রশাসনের একাধিক কর্মকর্তা জানান, পার্বত্যাঞ্চলে পাহাড়ি ও বাঙালির জনসংখ্যা প্রায় সমান। পার্বত্য চট্টগ্রাম ভূমি বিরোধ নিষ্পত্তি কমিশন আইন, ২০০১-এর সংশোধিত আইন (২০১৬) পাশ হওয়ার পর তিন পার্বত্য জেলা থেকে ভূমি কমিশন বরাবর ২২ হাজার ৯০টি আবেদনপত্র জমা পড়ে। ২০১৯ সালের ২৭ নভেম্বর পার্বত্য চট্টগ্রাম ভূমি বিরোধ নিষ্পত্তি কমিশনের ষষ্ঠ বৈঠক হয়। একই বছরের ২৩ ডিসেম্বর কমিশনের সপ্তম বৈঠকে আবেদন যাচাই-বাছাই কার্যক্রম শুরু হওয়ার কথা থাকলেও কমিশন তা করেনি। এ নিয়ে পাহাড়ি ও বাঙালিদের মধ্যে চরম অসন্তোষ বিরাজ করছে। একই কারণে বর্তমান ভূমি বিরোধ নিষ্পত্তি কমিশনের প্রতি বাঙালিদের আস্থাও কমে গেছে। তাই নতুন বিধিমালা তৈরির পূর্বে ভূমি কমিশনের কার্যক্রম শুরু হলে তাদের মধ্যে নেতিবাচক প্রতিক্রিয়া সৃষ্টি হওয়ার আশঙ্কা রয়েছে। যা ভবিষ্যতে দাঙ্গায় পরিণত হতে পারে। এ কারণে বিধিমালা প্রণয়নের পূর্বেই ভূমি কমিশনে আবেদনকৃত অভিযোগসমূহ যাচাই-বাছাই কার্যক্রম আপাতত স্থগিত রাখা প্রয়োজন বলে স্থানীয় প্রশাসনের কর্মকর্তা জানান।

এদিকে ভূমি কমিশনের বর্তমান বিধিমালায় কর্মকর্তা-কর্মচারী নিয়োগের ক্ষেত্রে কমিশনের সচিবসহ অন্য কর্মকর্তা ও কর্মচারীর পদসমূহের ক্ষেত্রে উপজাতীয় ব্যক্তিদের নিয়োগের বিধান রাখা হয়েছে। যা কমিশনের নিরপেক্ষতাকে প্রশ্নবিদ্ধ করবে। অপরদিকে আশির দশকে তৎকালীন শান্তিবাহিনীর অপতৎপরতার কারণে ১৯৮৬ সালে বাঙালিদের গুচ্ছগ্রামসমূহে স্থানান্তর করা হয়। কালের পরিক্রমায় বাঙালিদের ফেলে যাওয়া অধিকাংশ জমি উপজাতীয়রা দখল করে নেয়। খাগড়াছড়ি জেলার দীঘিনালা উপজেলার ৫ নম্বর বাবুছড়া ইউনিয়নের অন্তর্গত সোনামিয়া টিলা নামক স্থানে ৮১২ ভুক্তভোগী বাঙালি পরিবারের জমি উপজাতীয়দের দখলের ঘটনা এর মধ্যে অন্যতম।

২০১৬ থেকে ২০১৭ সাল পর্যন্ত সোনামিয়া টিলার খাস ভূমির বেশ কিছু অংশ দখল করে ইউপিডিএফের (প্রসিত) প্রত্যক্ষ এবং পরোক্ষ মদতে স্থানীয় উপজাতীয়রা কৌশলে বসতি গড়ে তোলে। বিষয়টি বাঙালিদের নজরে এলে বিভিন্ন সময়ে তারা প্রতিবাদ কর্মসূচি পালন করার পাশাপাশি তাদের নামে বরাদ্দকৃত ভূমিতে ফিরে যাওয়ার জন্য প্রশাসনের সহযোগিতা কামনা করেন। এর প্রেক্ষিতে ২০১৮ সালের ১ নভেম্বর পার্বত্য চট্টগ্রাম বিষয়ক মন্ত্রণালয় সংশ্লিষ্ট জেলা প্রশাসক এবং জেলা পরিষদ চেয়ারম্যানকে ভূমি উদ্ধারের প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের নির্দেশ দেয়। তা এখনো কার্যকর হয়নি।

সূত্র- ইফতেখারুল ইসলাম, পূর্বকোণ

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এ জাতীয় আরো সংবাদ
এই পোর্টালের কোনো খেলা বা ছবি ব্যাবহার দন্ডনীয় অপরাধ।
কারিগরি সহযোগিতায়: ইন্টাঃ আইটি বাজার
iitbazar.com