• শুক্রবার, ২৪ মে ২০২৪, ০৩:৩৭ অপরাহ্ন
শিরোনাম
রামগড় ৪৩ বিজিবির অভিযানে ভারতীয় মদ জব্দ রামগড় থানার অফিসার ইনচার্জ দেব প্রিয় দাশ জেলার শ্রেষ্ঠ ওসি নির্বাচিত পানছড়িতে গুচ্ছগ্রামের গম না দেওয়াকে কেন্দ্র করে মারামারি, আহত ৩ কুকি চিনের বিরুদ্ধে চলমান অভিযান অব্যাহত রাখাসহ পাহাড়ের বিভিন্ন ইস্যু নিয়ে পিসিএনপি’র সংবাদ সম্মেলন হালদার উজানে বালু উত্তোলনের দায়ে মানিকছড়িতে একজনকে জরিমানা সাজেকে বিনামূল্যে চিকিৎসা সেবা ও ঔষুধ বিতরণ করেছে সেনাবাহিনী সীমান্ত সড়কের রাস্তার পাশে পড়েছিল মরদেহ,উদ্ধার করলো পুলিশ নড়াইলে ইয়াবা ও গাঁজাসহ একজন গ্রেফতার মানিকছড়িতে তৃণমূল উন্নয়ন সংস্থার আস্থা প্রকল্পের সভা অনুষ্টিত কাপ্তাই থানা পুলিশ এর পৃথক  অভিযানে চোলাই মদ ও গাজা সহ আটক : ৩ বুদ্ধ পূর্ণিমা উপলক্ষে পানছড়িতে বিশ্ব শান্তি কামনায় মঙ্গল শোভাযাত্রা অনুষ্ঠিত হয়েছে আজ শরিকদের সঙ্গে বসছেন প্রধানমন্ত্রী

গুইমারায় নিজ উদ্যোগে প্রাথমিক বিদ্যালয় প্রতিষ্টা করলেন- চাইথোয়াই চৌধুরী

রিপন সরকার নিজস্ব প্রতিনিধি, খাগড়াছড়ি: / ৪১৫ জন পড়েছেন
প্রকাশিত : শুক্রবার, ৩ সেপ্টেম্বর, ২০২১

খাগড়াছড়ির গুইমারা উপজেলার হাফছড়ি ইউনিয়নের বৈদ্য পাড়া দূর্গম এলাকায় ব্যক্তিগত উদ্যােগে বে-সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় প্রতিষ্টা করেছেন ইউপি চেয়ারম্যান চাইথোয়াই চৌধুরী।

এলাকাবাসী জানান,হাফছড়ি ইউনিয়ন পরিষদের ৫নং ওয়ার্ডটি ৫টি গ্রাম নিয়ে গঠিত এই ওয়ার্ডে কোমলমতি শিশুদের প্রাথমিক শিক্ষার জন্য কোন প্রাথমিক বিদ্যালয় নেই বৈদ্যপাড়া, নাইক্কাপাড়া,মগবৈদ্য পাড়া, চাকমা বৈদ্য পাড়া,তাইন্দং পাড়া এই পাঁচটি গ্রামের ছোট্র ছোট্র শিশুদের প্রাথমিক বিদ্যালয়ে যেতে হলে পাহাড়ী দূর্গম আঁকা বাঁকা রাস্তা জঙ্গলে ঘেরা পথ পাড়ি দিয়ে ৩কি:মি:দূরে বড়তলি পাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে যেতে হতো অনেক কষ্ট করে।
বিষয়টি একদিন হাফছড়ি ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান চাইথোয়াই চৌধুরীকে জানালে তিনি সরোজমিনে গিয়ে এলাকা বাসীদের মতামতের ভিত্তিতে দূর্গম এলাকার ছোট্র ছোট্র শিক্ষাথীদের সুবিধার জন্য একটি বে-সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় প্রতিষ্টা করা হয়েছে।
হাফছড়ি ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান চাইথোয়াই চৌধুরী বলেন,দুর্গম এলাকার অবহেলিত পাঁচ গ্রামের প্রায় ৪ শতাধীক পরিবারের প্রাথমিক বিদ্যালয়ে পড়ুয়া শতাধিক কোমলমতি শিক্ষার্থী তিন কিলোমিটার দূরে দুর্গম পাহাড়ী পথ পাড়ি দিয়ে পাঁয়ে হেঁটে বড়তলী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে যেতে হয় পাঠদানের জন্য। শিশুদের কষ্ট লাঘবের জন্য। আমি নির্বাচিত হওয়ার পর ২০১৮ সালে ব্যক্তিগত উদ্যােগে নিজস্ব অর্থায়নে পাড়াবাসীদের সহযোগিতায় বৈদ্য পাড়া বে-সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ভবনের জন্য একটি জায়গা নির্ধারন করে সেখানে একটি টিনসেড ভেড়ার ঘর নির্মাণ করে দিয়েছি।
বর্তমানে প্রায় শতাধিক শিক্ষার্থী রয়েছে এখানে। শিক্ষকরা স্থানীয় ব্যবসাসহ অন্যান্য কাজের সঙ্গে সম্পৃক্ত। অনেকটা স্বেচ্ছাশ্রমের ভিত্তিতে চারজন শিক্ষকের মাধ্যমে বিদ্যালয়টিতে পাঠদান চলছে মাঝে মধ্যে বিভিন্ন দিবসে আমি আমার ব্যাক্তিগত পক্ষ থেকে এবং সেনাবাহিনীর ও কিছুটা সহযোগিতা করে থাকে। তবে বিদ্যালয়টির সরকারি পাঠদানের অনুমতি রয়েছে। বিদ্যালয়টি সরকারি হলে বৈদ্যপাড়া বে-সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়টির মানসম্মত সু-শিক্ষা সুনিশ্চিত হবে বলে আমি মনে করি।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো সংবাদ