• শনিবার, ২০ এপ্রিল ২০২৪, ০১:১৪ অপরাহ্ন
শিরোনাম
মহালছড়িতে বৈসাবি ফুটবল টুর্নামেন্টে অংম্রাং ক্লাব চ্যাম্পিয়ন বান্দরবানে জলবায়ু ধর্মঘট করেছে ইয়ুথনেট বান্দরবানে যৌথ অভিযানে গণগ্রেফতার ও হয়রানির প্রতিবাদে খাগড়াছড়িতে পিসিপির বিক্ষোভ মিছিল মানিকছড়িতে সাংগ্রাই উপলক্ষে ঐতিহ্যবাহী বলি খেলা অনুষ্ঠিত সামাজিক অনুষ্ঠানে প্রার্থীদের সবর উপস্থিতি অসাম্প্রদায়িক ও স্মার্ট জনপদ গড়ার অঙ্গীকার তীব্র দাবদাহ বিদ্যুৎ বিভ্রাট পোল্ট্রি খামারে হাঁসফাঁস অবস্থা! খাগড়াছড়ি পার্বত্য চট্টগ্রাম নাগরিক পরিষদের সম্মেলন ২০ এপ্রিল ব্যাংকে হামলা: ১৮ নারীসহ ৫৩ কেএনএফ সন্ত্রাসীর রিমান্ড মঞ্জুর মানিকছড়িতে মোবাইল কোর্টে জরিমানা নতুন বাজার আনন্দ মেলা খেলার মাঠে গোলবার প্রদান করলেন কাপ্তাই সেনা জোন

কাপ্তাই হৃদের আওতাধীন এলাকায় মাছ না ধরার সময় বৃদ্ধি

রিপন ওঝা, নিজস্ব প্রতিবেদক, মহালছড়িঃ / ৩৮৭ জন পড়েছেন
প্রকাশিত : বৃহস্পতিবার, ২৯ জুলাই, ২০২১

মহালছড়ি উপজেলা সহ কাপ্তাই হৃদের আওতাধীন সকল এলাকার চেঙ্গী নদীতে, বিলে, ছড়ার মাছ না ধরার নিষিদ্ধের সময়সীমা বাড়ানো হয়েছে। কাঙ্ক্ষিত বৃষ্টি না হওয়ায় কাপ্তাই হ্রদের পানি প্রয়োজনীয় পরিমাণে না বাড়ায় আরো ১০ দিনের মতো সময় বৃদ্ধি করার যথাযথ সিদ্ধান্ত গ্রহণ করে জুম সভায়।

গত কাল (২৮/০৭/২১) এ সংক্রান্ত এক জরুরি জুম সভায় এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে বলে জানিয়েছেন, বাংলাদেশ মৎস্য উন্নয়ন কর্পোরেশন কাপ্তাই হ্রদ মৎস্য উন্নয়ন ও বিপণন কেন্দ্র, রাঙামাটির কেন্দ্রের ব্যবস্থাপক লে. কমান্ডার তৌহিদুল ইসলাম।

আগের ঘোষণা অনুসারে ৩১ জুলাই মধ্যরাতের পর থেকে মাছ ধরা শুরু হওয়ার কথা ছিল। বর্তমান সিদ্ধান্তে তা শুরু হবে ১০ জুলাই মধ্য রাতের পর। জুমসভার সিদ্ধান্ত অনুযায়ী সময় ৩১ জুলাই থেকে আরও ১০ দিন বাড়িয়ে ১০ আগস্ট করা হয়েছে। তবে ১০ আগস্টের মধ্যেও যদি হ্রদে পর্যাপ্ত পানি না বাড়ে, সেক্ষেত্র এই মেয়াদ বাড়ানো হতে পারে বলেও ইঙ্গিত পাওয়া গেছে।

কাপ্তাই হ্রদ মৎস্য উন্নয়ন ও বিপণন কেন্দ্র, মহালছড়ির উপকেন্দ্র প্রধান নাসরুল্লাহ আহমেদ জানান, কাপ্তাই হ্রদে পানি কম থাকায় এখন মৎস্য আহরণ শুরু হলে সমগ্র কাপ্তাই হ্রদের মৎস্য সম্পদ কমে যাওয়ার সম্ভাবনা তাই জরুরি সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে।

বাংলাদেশ মৎস্য উন্নয়ন কর্পোরেশন ও মৎস বিজ্ঞানীরা বলছেন, ‘হ্রদে এখন অবধি পানি ঠিকঠাক না বাড়ার কারণে এই মুহূর্তে মাছ ধরা শুরু হলে বিপন্ন হবে হ্রদের মৎস্য সম্পদ।’

গতকাল রাঙামাটির জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ মিজানুর রহমানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত গুরুত্বপূর্ণ এক জুম মিটিংয়ে এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়।

উক্ত জুমসভায় আরো যুক্ত হন মৎস্য গবেষণা ইনস্টিটিউট, মৎস্য অফিস, নৌ-পুলিশ, বাংলাদেশ মৎস্য উন্নয়ন কর্পোরেশনও মৎস্য ব্যবসায়ীদের প্রতিনিধিরা।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো সংবাদ