• রবিবার, ১৬ জুন ২০২৪, ০২:২৪ অপরাহ্ন
শিরোনাম
ঈদ উপলক্ষে হরিহরনগর ইউনিয়ন পরিষদে ভিজিএফের চাল বিতরণ বাগেরহাটে বেআইনীভাবে প্রস্তুত হচ্ছে শামুকের খোলস পুড়িয়ে চুন ২ এপিবিএন, মেঘলা, বান্দরবান কর্তৃক একজন মাদক ব্যবসায়ী গ্রেফতার দেশ সেরা এটিও কাপ্তাইয়ের আশীষ কুমার আচার্য্য বাকী আছে ১দিন-গরু বাজারে ভীড় ক্রেতা ও বিক্রেতার শার্শা বেনাপোল বন্দরের ৫ দিন বন্ধ থাকবে আমদানি-রপ্তানি মোংলায় দিন দুপুরে দোকান ঘর ভাংচুর ও জবর দখলের চেষ্টা লংগদুতে বজ্রপাতে নিহত ৪ নিখোঁজ ১ মহালছড়ি সেনা জোনের উদ্যোগে ঈদ উপহার সামগ্রী বিতরণ মাটিরাঙায় সেনাবাহিনীর বিশেষ মানবিক সহায়তা কাপ্তাই শিল্প এলাকা হতে উদ্ধার ১২ টি পান কৌড়ি  শেখ রা‌সেল এভিয়ারী এন্ড ইকো-পার্কে হস্তান্তর  আসছে সামনে ঈদুল আযহা উপলক্ষে কোরবানির গরুর হাট

এস এ বি গ্রুপের বাঁধে ভাঙন, আতঙ্কিত কমলনগরবাসি

হাবিবুর রহমান, লক্ষ্মীপুর প্রতিনিধি : / ১২৬ জন পড়েছেন
প্রকাশিত : সোমবার, ৭ আগস্ট, ২০২৩

হাবিবুর রহমান, লক্ষ্মীপুর প্রতিনিধি:

লক্ষ্মীপুরের কমলনগর চর ফলকন এলাকায় এস এ বি গ্রুপের ৬৫০ মিটার নদীর বেড়ি বাঁধে ভাঙন শুরু হয়েছে। এতে ভাঙন আতঙ্কে দিন পার করছেন এলাকার কয়েক হাজার মানুষ। বিস্তীর্ণ এলাকা লোনা পানিতে প্লাবিত ভাঙন ঠেকাতে এস এ বি গ্রুপ এবং পানি উন্নয়ন বোর্ডের নেই কোন পদক্ষেপ।

স্থানীয়রা জানান, উপজেলায় চর ফলকন ইউনিয়নে এস এ বি গ্রুপের ৬৫০ মিটার বেড়ি বাঁধ রয়েছে। এখানে সঠিক সময়ে পরিকল্পিত ও টেকসই বাঁধ নির্মাণ না হওয়ায় ভাঙনের কবলে পড়েছে।

এদিকে এর কারণ হিসেবে পানি উন্নয়ন বোর্ডে (পাউবো) ও এস এ বি গ্রুপের গাফিলতিকেই দায়ী করেছেন স্থানীয়রা। তাঁরা বলছেন, এই বাঁধ ভেঙে তলিয়ে যেতে পারে পুরো কয়েক শত একর জমি এবং বসত বিটা।

সরেজমিনে দেখা যায়, চর ফলকন এলাকায় এস এ বি গ্রুপের ৬৫০ মিটার নদী বাঁধের এই দুই থেকে চার ফুট অবশিষ্ট রয়েছে। এ ছাড়াও এলাকার সাড়ে ৪০০ মিটার বাঁধ সম্পূর্ণ ঝুঁকিপূর্ণ অচিরেই ভেঙ্গে যেতে পারে।

স্থানীয়রা জানান, বাঁধে ভাঙন দেখা দিয়েছে। যে কোনো সময় সম্পূর্ণ ভেঙে যেতে পারে। এর আগেও বাঁধের কিছু অংশ ভেঙে কয়েকটি গ্রাম প্লাবিত হয়েছে। এমন অবস্থায় নদীর পাড়ে ভাঙন আতঙ্কে দিন পার করছেন তাঁরা।

তাঁরা জানান, বাঁধ ভেঙে এলাকায় লোনা পানি ঢুকলে সব ধরনের ফসল ও গাছ মারা যায়। ঘর ভেঙে পড়ে। গবাদি পশু নিয়ে বিপদে পড়তে হয়। তাঁদের দাবি অতি দ্রুত ব্যবস্থা না নিলে চর ফলকন তথা কমলনগর উপজেলার কয়েক শত পরিবার পানিবন্দী হয়ে পড়বে।

এস এ বি গ্রুপের প্রজেক্ট ম্যানেজার মো:সিরাজ বলেন, ‘ভাঙনের খবর পেয়েছি। মুলত আমরা এখনো বাঁধের কাজ শুরুই করিনাই। পানি যেন না গড়ায় তাই ডাম্পিং এর সাথে সাময়িক টেম্পোরারি একটা বাঁধ দিয়েছি। খুব শিগ্রই পানি কমে গেলে ব্লকসহ বাঁধের কাজ শুরু করবো।

 


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো সংবাদ