• রবিবার, ০৩ মার্চ ২০২৪, ০৬:০৩ অপরাহ্ন
শিরোনাম
ঢাবিতে ভর্তিচ্ছুকদের জন্য ধারাবাহিকভাবে পার্বত্য চট্টগ্রাম ছাত্র পরিষদ পিসিসিপি’র ‘হেল্প ডেস্ক’ সঠিক তথ্যে ভোটার হয়ে স্মার্ট বাংলাদেশ বিনির্মানে ভুমিকা রাখতে হবে…ডেজী চক্রবর্তী মাটিরাঙায় জাতীয় বীমা দিবস উদযাপন জাতীয় বীমা দিবসে মানিকছড়িতে শোভাযাত্রা ও আলোচনা সভা ১নং কবাখালী সপ্রাবিতে পুরস্কার বিতরণ ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান এনায়েতপুরে মেয়েকে ইভটিজিং এর প্রতিবাদ করায় সাংবাদিককে মারধর, কিশোর গ্যাংয়ের লিডার সহ ৪ জন আটক বাঘাইহাট দারুল আরকাম ইবতেদায়ি মাদ্রাসার শিক্ষার্থীদের মাঝে পোশাক ও বার্ষিক ক্রীড়া পুরস্কার বিতরণ অনুষ্ঠিত গুইমারাতে সেনাবাহিনীর মানবিক সহায়তা প্রদান কোস্ট গার্ড পশ্চিম জোনের বিনামূল্যে চিকিৎসা সেবা ও ঔষধ বিতরণ আলীকদমে একুশে বই মেলায় বীর বাহাদুর এমপি

কথা দিয়ে কথা রাখলেন খাগড়াছড়ি পুলিশ সুপার মুক্তাধর পিপিএম (বার)

মোঃ সালাউদ্দিন, বিশেষ প্রতিনিধ: / ১০৪ জন পড়েছেন
প্রকাশিত : সোমবার, ২৯ জানুয়ারী, ২০২৪

 

মোঃ সালাউদ্দিন:-খাগড়াছড়ি পুলিশ নারী কল্যাণ সমিতি (পুনাক), এর উদ্দগ্যে গত ১৭ (জানুয়ারি) খাগড়াছড়ি পার্বত্য জেলার পুলিশ সুপার মুক্তাধর পিপিএম (বার) এর সভাপতিত্বে খাগড়াছড়ি জেলার শাপলা চত্বরে অবস্থিত মুক্ত মঞ্চে দিনব্যপি ফ্রি মেডিকেল ক্যাম্পের আয়োজন করা হয়। পুনাকের এই সেবামূলক কার্যক্রমের মাধ্যমে প্রায় চার শতাধিক অসহায় মানুষ বিভিন্ন রোগের অভিজ্ঞ ডাক্তারদের নিকট থেকে ফ্রি চিকিৎসা সেবা গ্রহণ করেছিলেন। সেখানে চিকিৎসা সেবা নিতে এসেছিলেন রহিমা বেগম (৫১), স্বামী-মৃত আব্দুল মফিজ, সাং- গঞ্জপাড়া, উত্তরচর, খাগড়াছড়ি সদর, খাগড়াছড়ি। তিনি মূলত একজন শ্রবণ শক্তিহীন বধির হতদরিদ্র মহিলা।পেশায় তিনি একজন ভিক্ষুক। তিনি কারও কথা কানে শুনতে পান না। বিষয়টি নজরে আসে খাগড়াছড়ি জেলার সুযোগ্য পুলিশ সুপার মুক্তাধর পিপিএম (বার)এর।

পুলিশ সুপার সেদিন রহিমা বেগম (৫১) কে কথা দিয়েছিলেন তাকে একটি “হিয়ারিং এইড” শ্রবণশক্তি বৃদ্ধি সহায়ক যন্ত্র কিনে দিবেন। ২৯ (জানুয়ারি) সেই কথার বাস্তবায়ন করলেন পুলিশ সুপার মুক্তাধর পিপিএম (বার)।

খাগড়াছড়ি জেলার শাপলা চত্তরে অবস্থিত মানবতার দেয়াল খ্যাত মুক্ত মঞ্চে রহিমা বেগম (৫১) কে নিজ হাতে তার কানে পরিয়ে দিলেন শ্রবণশক্তি বৃদ্ধি সহায়ক যন্ত্র “হিয়ারিং এইড”। পুলিশ সুপার এর নিকট থেকে রহিমা বেগম (৫১) “হিয়ারিং এইড” যন্ত্রটি পেয়ে আবেগে আপ্লুত হয়ে পড়েন।

এসময় তিনি পুলিশ সুপার মুক্তাধর পিপিএম (বার)কে জড়িয়ে ধরে কান্না করেন। তিনি বলেন যে, “সমাজে অনেক বিত্তশালী মানুষ আছেন কিন্তু কেউ তাকে এভাবে সাহায্য করেন নাই। কিন্তু আমার এই দুর্দশা দেখে পুলিশ আমার পাশে দাড়িয়েছেন”। তিনি পুলিশ সুপার মুক্তাধর পিপিএম (বার) সহ বাংলাদেশ পুলিশের প্রতি ধন্যবাদ জ্ঞাপন করেন এবং পুলিশ সুপার মুক্তাধর পিপিএম (বার)এর দীর্ঘায়ু কামনা করেন।

এসময় তিনি দুহাত তুলে দোয়া করেন যে, “স্যারের মত প্রতিটি জেলায় এরকমের অফিসার জন্ম নেন”।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো সংবাদ