• মঙ্গলবার, ১৬ জুলাই ২০২৪, ০৫:৫৮ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম
দিনেদুপুরে কৃষকের বাড়িতে হামলা লুটপাট রাঙামাটি সদর জোনের বিনামূল্যে চিকিৎসা সেবা ও ঔষধ প্রদান আলীকদম সেনা জোন কর্তৃক মানবিক সহায়তা প্রদান পানছড়ি মাদ্রাসায় অব্যবস্থাপনা ও অবৈধ নিয়োগ বাতিলের দাবিতে মানববন্ধন খাগড়াছড়িতে মাদকদ্রব্যের অপব্যবহার ও অবৈধ পাচারবিরোধী আন্তর্জাতিক দিবস উপলক্ষ্যে র‍্যালি ও আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত কাপ্তাইয়ে বঙ্গবন্ধু ও বঙ্গমাতা প্রাথমিক বিদ্যালয়  ফুটবল টুর্ণামেন্ট শুরু  কাপ্তাই বন বিভাগের পক্ষ হতে শিক্ষার্থীদের গাছের চারা বিতরণ  কাপ্তাই রাহাত স্টোরে ৩৫ প্রকার চা এবং হরেক রকম পান পাওয়া যায়  খাগড়াছড়ি গুইমারা থানা পুলিশের অভিযানে গাজাসহ আটক-২ রাজস্থলীতে উৎসব মুখর পরিবেশে বঙ্গবন্ধু-বঙ্গমাতা গোল্ডকাপ ফুটবল টুর্নামেন্টের ফাইনাল সম্পন্ন কাপ্তাইয়ের  শিলছড়িতে সামাজিক শৃঙ্খলা কমিটি গঠন  বীর মুক্তিযোদ্ধার পরলোকগমন রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় সতকার

রাজারহাটে নদী ভাঙ্গন এলাকা পরিদর্শনে কুড়িগ্রামের এমপি

আনিসুর রহমান,রাজারহাট কুড়িগ্রামঃ / ১৩৪ জন পড়েছেন
প্রকাশিত : বৃহস্পতিবার, ২০ জুন, ২০২৪

 

আনিসুর রহমান,রাজারহাট কুড়িগ্রামঃ

গত কয়েক দিনের অনবরত বৃষ্টি উজানের পাহাড়ি ঢলে তিস্তার পানি বৃদ্ধি।পানি বৃদ্ধির সাথে সাথে দেখা দিয়েছে তীব্র ভাঙ্গনের।নদী কেড়ে নিচ্ছে ঘর বাড়ি ফসলি জমি।ভিটে মাটি হাড়িয়ে নিঃস্ব প্রায় তিস্তা পাড়ের মানুষ। ঠিক সেই সময় নদী ভাঙ্গন ও তিস্তা পাড়ের মানুষের দুর্দশা দেখতে আসেন কুড়িগ্রামের এমপি ডা হামিদুল হক খন্দকার। এ সময়ে ডা: হামিদুল হক খন্দকার বলেন,প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা নদী ভাঙা মানুষের জন্য তার বিশেষ দৃষ্টি রয়েছে। নদী ভাঙন ঠেকাতে এবং নদীর নাব্যতা ফিরিয়ে আনতে সরকার নদী খনন ও তীররক্ষা কর্মকান্ডে মেগা প্রকল্প হাতে নিয়েছে। এ মেগা প্রকল্পে কুড়িগ্রাম অন্যতম অবস্থানে রয়েছে। এ প্রকল্পের আওয়তায় তিস্তা,ধরলা এবং ব্রহ্মপত্র নদের বিভিন্ন ভাঙ্গন এলাকায় নদী শাসন করা হবে।
২০ জুন বৃহস্পতিবার সকাল সাড়ে ১১টায় কুড়িগ্রাম-২ আসনের এমপি ডা: হামিদুল হক খন্দকার
জেলার রাজারহাট উপজেলার ঘড়িয়াডাঙ্গা ইউনিয়নের সরিষাবাড়ী,বিদ্যানন্দ ইউনিয়নের কালিরহাট ও ডাঙ্গারহাট ভাঙন কবলিত এলাকা পরিদর্শন করেন। এ সময় ভাঙ্গনের শিকার অর্ধশতাধিক মানুষ তাকে জড়িয়ে ধরে কান্না জড়িত কন্ঠে নদী ভাঙনের প্রতিকার চান। তিনি উপস্থিত নদী ভাঙ্গন মানুষদের বলেন শীঘ্রই নদীর ভাঙন রোধ করা হবে,তিনি আরও বলেন-প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা কুড়িগ্রামের নদী ভাঙা মানুষের জন্য তার বিশেষ দৃষ্টি রয়েছে। এ জন্য তিনি কুড়িগ্রামের নদী শাসনে বরাদ্দ দিয়েছেন। এই বরাদ্দ বাস্তবায়ন হলে কুড়িগ্রামকে চিরদিনের জন্য নদী ভাঙন থেকে মুক্তি পাবে।
ভাঙ্গন কবলিত এলাকা পরিদর্শনকালে উপস্থিত ছিলেন-কুড়িগ্রাম পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী রাকিবুল হাসান,উপজেলা স্বাস্থ্য প.প কর্মকর্তা ডা: মো: মিজানুর রহমান,এমপি’র প্রতিনিধি সহকারী অধ্যাপক এরশাদুননবী নবীন,বিদ্যানন্দ ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান মো: তাইজুল ইসলাম ও স্থানীয় নদী পাড়ের মানুষ।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো সংবাদ