• শুক্রবার, ১৪ জুন ২০২৪, ০৯:৪০ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম
মাটিরাঙায় প্রাকৃতিক দুর্যোগে ক্ষতিগ্রস্থ পরিবারের পাশে দাঁড়ালেন ইউএনও আলীকদম সেনা জোন (৩১ বীর) কর্তৃক ২,৬৬,৬০৫ টাকা আর্থিক অনুদান প্রদান নিজের কণ্ঠস্বর বিক্রি করে সফলতা অর্জন রামগড়ে বাগান শ্রমিকের মরদেহ উদ্ধার রামগড় কৃষি গবেষণা কেন্দ্রের জঙ্গলে পড়েছিল শ্রমিকের মরদেহ কাপ্তাইয়ে পাহাড় ধ্বসের  আজ ৭ বছর : এখনোও ঝুঁকিতে বসবাস করছে বহু মানুষ রাজধানীর পল্টনে বহুতল ভবনে আগুন চট্রগ্রামে শপথ নিলেন রাজস্থলী উপজেলার চেয়ারম্যান ও ভাইস চেয়ারম্যানরা পাংশায় গ্রেপ্তারি পরোয়ানাভুক্ত ৬ আসামি গ্রেপ্তার  রামগড় ৪৩ বিজিবির অভিযানে ভারতীয় মদ জব্দ কাপ্তাই নতুনবাজার আনন্দ মেলা গরুর বাজার: পাহাড়ি গরুর চাহিদা বেশী ক্রেতাদের কাপ্তাই সেনা জোনের উদ্যোগে  বিনামূল্যে চিকিৎসা সেবা প্রদান

সুনীল কুমার চাকমা কর্তৃক বাঙালি কিশোরীকে ধর্ষণের প্রতিবাদে পিসিসিপি’র বিবৃতি

মোঃ শহিদুল ইসলাম, স্টাফ রিপোর্টার (রাঙ্গামাটি) / ৩২৩ জন পড়েছেন
প্রকাশিত : রবিবার, ১ অক্টোবর, ২০২৩

মোঃ শহিদুল ইসলাম, স্টাফ রিপোর্টার (রাঙ্গামাটি)

পার্বত্য চট্টগ্রাম ছাত্র পরিষদ (পিসিসিপি) রাঙামাটি জেলা শাখা কর্তৃক আজ ১ অক্টোবর রবিবার দুপুরে সুনীল কুমার চাকমা কর্তৃক বাঙালি কিশোরীকে ধর্ষণের প্রতিবাদে গণমাধ্যমে বিবৃতি দিয়ে নিন্দা ও প্রতিবাদ জানায়।

বিবৃতিতে পিসিসিপি রাঙামাটি জেলা সভাপতি মো: হাবীব আজম বলেন HBF সূত্র মতে জানা যায়, রাঙামাটি পার্বত্য জেলার জুরাছড়ি উপজেলার ধামাইপাড়া জখখাবাজার এলাকায় গত (শনিবার) ২৩-শে সেপ্টেম্বর ২০২৩ খ্রিস্টাব্দ দুপুর সাড়ে ১২ টার সময় (৪৬) বছর বয়সী এক ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠীর চাকমা বয়স্ক পুরুষ কর্তৃক জোরপূর্বক এক বাঙালি মুসলিম কিশোরী ধর্ষণের শিকার হয়।

চাকমা সম্প্রদায়ের এই ধর্ষকের নাম সুনীল কুমার চাকমা (৪৬); পিতার নাম দয়াধন চাকমা গ্রাম: ধামাইপাড়া, জুরাছড়ি।
ধর্ষণের শিকার বাঙালি কিশোরীর নাম রাবেয়া(ছদ্মনাম)(১৭) পিতা: আজগর (ছদ্মনাম) গ্রাম: হাসপাতাল এলাকা, জুরাছড়ি।

জখখাবাজার নিরাপত্তা বাহিনীর ক্যাম্প থেকে ৫০০ মিটারের মধ্যে এই ধর্ষণের ঘটনা ঘটে। ধর্ষিত কিশোরী শারিরীক অবস্থান ভালো নয়। তাকে জোরপূর্বক ধর্ষণ করা হয়। ঘটনার পর সুনির্দিষ্ট অভিযোগের ভিত্তিতে জখখাবাজার আর্মি ক্যাম্প ধর্ষককে আটক করে জুরাছড়ি থানা পুলিশের নিকট হস্তান্তর করে। অথচ উক্ত ধর্ষণের ঘটনা নিয়ে কারো কোন প্রতিবাদ না দেখে হাবীব আজম বলেন আমরা হতবাক হলাম।

বিবৃতিতে পিসিসিপি জেলা সাধারণ সম্পাদক তাজুল ইসলাম বলেন, উপরোক্ত ধর্ষণের ঘটনা উপজাতি ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠীর চাকমা সম্প্রদায়ের একজন বয়স্ক পুরুষ কর্তৃক ঘটেছে। উক্ত ধর্ষণ ঘটনার নয় দিন অতিবাহিত হলেও এই নিয়ে ইউপিডিএফ-জেএসএস এর সহযোগী অঙ্গসংগঠন, ‘পার্বত্য চট্টগ্রামের নারীবাদী সংগঠন’, এবং দেশের নারীবাদী সংগঠন ও তথাকথিত সুশীল, বুদ্ধিজীবিদের বিবৃতি যেমন চোখে পড়েনি তেমনিই চুল-ছেঁড়া বিশ্লেষণ করতে দেখা যায়নি। কারণ, ধর্ষক এখানে ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠীর চাকমা সম্প্রদায়ের তাই এই নিয়ে কথা বলা যাবে না। যদি এই ক্ষেত্রে ভিকটিম ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠীর আর ধর্ষক বাঙালি হতো তাহলে এই ধর্ষণ নিয়ে ধর্ষক তকমা দিয়ে বাঙালিদের চৌদ্দ গোষ্ঠী উদ্ধার করে বিষয়টি সারাদেশে ছড়িয়ে দিয়ে হীন স্বার্থ চরিতার্থে বিশেষ ফায়দা হাসিল করতো একশ্রেণীর উপজাতি ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠীর কুচক্রী মহল।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো সংবাদ