• মঙ্গলবার, ২৫ জুন ২০২৪, ০৭:০৩ অপরাহ্ন
শিরোনাম
কাপ্তাই জাতীয় উদ্যানে লজ্জাবতী বানর অবমুক্ত  কারিগর পাড়ায় জীপ উল্টে  নিহত ১, আহত ২ কাপ্তাই ইফা’তে বিদায় -বরণ সংবর্ধনা অনুুষ্ঠিত  বিলাইছড়িতে বর্ণিল আয়োজনে আওয়ামী লীগের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী পালিত ফকিরহাটে বাসের সাথে মটরসাইকেলের সংঘর্ষ, শিশুসহ নিহত-২  আওয়ামী লীগের ৭৫ তম জয়ন্তি উদযাপন উপলক্ষে কাপ্তাইয়ে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত খাগড়াছড়িতে পার্বত্য চট্টগ্রাম এলাকায় আর্থ-সামাজিক উন্নয়নে ইক্ষু, সাথী ফসল ও গুড় উৎপাদন শীর্ষক কর্মশালা খাগড়াছড়িতে পুলিশ নারী কল্যাণ সমিতি (পুনাক) বিক্রয় কেন্দ্রের শুভ উদ্বোধন অনুষ্ঠিত খাগড়াছড়িতে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের ৭৫তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী পালিত লামা হাসপাতালে এমএসআর মালামাল সরবরাহে ব্যাপক অনিয়ম রাজস্থলীতে আওয়ামী লীগের ৭৫ তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী পালিত আলীকদম মারাইংতং পাহাড়ে বেড়াতে এসে মেডিকেল ছাত্রের মৃত্যু

বর্ষায় বেড়েছে পানিতে ডুবে শিশু মৃত্যু

মাসুদ রানা, স্টাফ রিপোর্টার / ১৫৬ জন পড়েছেন
প্রকাশিত : সোমবার, ৩১ জুলাই, ২০২৩

সারা দেশে পুকুর, নদীসহ বিভিন্ন জলাশয়ে ডুবে শিশু মৃত্যুর ঘটনা ঘটছে প্রতিদিনই। গত সাত মাসে ১৫ জেলাতে মারা গেছে তিনশতাধিক শিশু। শুষ্ক মৌসুমে কম হলেও বর্ষা এলে নদ-নদী, খাল-বিলে পানি বাড়ায় বাড়ে প্রাণহানির ঘটনাও। এ ধরনের ঘটনায় উদ্বিগ্ন অভিভাবকরা।

বিভিন্ন জেলায় গোসলে নেমে কিংবা খেলতে গিয়ে পানিতে ডুবে শিশু মৃত্যুর ঘটনা আগের তুলনায় বেড়েছে। এ জন্য পরিবার ও অভিভাবকদের অসচেতনতাকে দায়ী করছেন স্থানীয়রা।

গত ৫ জুলাই নোয়াখালীর ৪ উপজেলায় মারা যায় ৬ শিশু। আর ছয় মাসে অন্তত ১০০ শিশুর মৃত্যু হয়েছে পানিতে ডুবে। এই হার অন্য জেলার তুলনায় কিছুটা বেশি বলছেন গবেষকরা।

নদী-খালবেষ্টিত ঝালকাঠিতে এক বছরে ৯৩ শিশুর মৃত্যু হয়েছে। গত ৬ মাসে সে সংখ্যা ১৯। এ ধরনের দুর্ঘটনাকে পরিবারের উদাসীনতার কারণ বলছেন স্থানীয়রা।

নেত্রকোণায় গত ৩ মাসে মারা গেছে ৩৫ শিশু। আড়াই বছরে এ সংখ্যা ছাড়িয়েছে দুইশো। চলতি বছরে ঝিনাইদহে মারা গেছে ১৫ শিশুসহ ১৬ জন।

কুড়িগ্রামের সিভিল সার্জন ডা. মনজুর মোর্শেদ বলেন, গত ৭ মাসে কুড়িগ্রামে মারা গেছে ১৭ জন। বাড়ির পাশে অরক্ষিত জলাশয়ই দুর্ঘটনার কারণ।

কিশোরগঞ্জের জেলা প্রশাসক আবুল কালাম আজাদ বলেন, হাওরবেষ্টিত কিশোরগঞ্জে চলতি বছরে ১৫ এবং দেড় বছরে মারা গেছে ৮৬ শিশুসহ দেড়শো জন। অভাভাবকদের নজরদারি এবং অসচেতনতায় এ ধরনের দুর্ঘটনা ঘটছে।

এছাড়া গত সাত মাসে হবিগঞ্জে, টাঙ্গাইল, সিরাজগঞ্জ এবং শেরপুরে ৪৫ জনের মৃত্যু হয়েছে। শিশুদের সাঁতার শেখানোর পাশাপাশি অভিভাবকদের সচেতনতা হবার তাগিদ দিয়েছে ফায়ার সার্ভিস।

দিনাজপুর ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্সের সহকারী পরিচালক আমিরুল ইসলাম বলেন, পানিতে ডুবে শিশু মৃত্যু এড়াতে বাবা-মাকে সচেতন হতে হবে। এ ধরনের দুর্ঘটনা এড়াতে সাঁতার শেখার বিকল্প নেই।

বেশিরভাগ পুকুর বা বাড়ির পাশের জলাশয়ে নেই কোনও নিরাপত্তা বেষ্টনি। শিশুমৃত্যু রোধে প্রশাসনের পক্ষ থেকেও কোন সচেতনতামূলক প্রচারণা নেই বলে জানান স্থানীয়রা।

জনস্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞরা বলছেন, শিশুদের সাঁতার না জানা এবং বাড়ির পাশের জলাশয় অরক্ষিত থাকার কারণে বাড়ছে পানিতে ডুবে শিশু মৃত্যুর ঘটনা।

পানিতে ডুবে শিশু মৃত্যু রোধে সচেতনতা বাড়ানোসহ কার্যকর উদ্যোগ নিতে সরকারের প্রতি আহ্বান অভিভাবকদের।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো সংবাদ