• মঙ্গলবার, ২৫ জুন ২০২৪, ০৬:৫৩ অপরাহ্ন
শিরোনাম
কাপ্তাই জাতীয় উদ্যানে লজ্জাবতী বানর অবমুক্ত  কারিগর পাড়ায় জীপ উল্টে  নিহত ১, আহত ২ কাপ্তাই ইফা’তে বিদায় -বরণ সংবর্ধনা অনুুষ্ঠিত  বিলাইছড়িতে বর্ণিল আয়োজনে আওয়ামী লীগের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী পালিত ফকিরহাটে বাসের সাথে মটরসাইকেলের সংঘর্ষ, শিশুসহ নিহত-২  আওয়ামী লীগের ৭৫ তম জয়ন্তি উদযাপন উপলক্ষে কাপ্তাইয়ে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত খাগড়াছড়িতে পার্বত্য চট্টগ্রাম এলাকায় আর্থ-সামাজিক উন্নয়নে ইক্ষু, সাথী ফসল ও গুড় উৎপাদন শীর্ষক কর্মশালা খাগড়াছড়িতে পুলিশ নারী কল্যাণ সমিতি (পুনাক) বিক্রয় কেন্দ্রের শুভ উদ্বোধন অনুষ্ঠিত খাগড়াছড়িতে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের ৭৫তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী পালিত লামা হাসপাতালে এমএসআর মালামাল সরবরাহে ব্যাপক অনিয়ম রাজস্থলীতে আওয়ামী লীগের ৭৫ তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী পালিত আলীকদম মারাইংতং পাহাড়ে বেড়াতে এসে মেডিকেল ছাত্রের মৃত্যু

জি কে শামীমের ১০ বছর কারাদণ্ড

মাসুদ রানা, স্টাফ রিপোর্টার / ১৩৮ জন পড়েছেন
প্রকাশিত : সোমবার, ১৭ জুলাই, ২০২৩

মানিলন্ডারিং আইনের মামলায় কথিত যুবলীগ নেতা এস এম গোলাম কিবরিয়া শামীম ওরফে জি কে শামীমকে ১০ বছরের কারাদণ্ড দিয়েছেন আদালত। এই মামলার অন্য সাত আসামি (জি কে শামীমের সহযোগী)-কে চার বছর করে কারাদণ্ডাদেশ দেওয়া হয়েছে।

দণ্ডপ্রাপ্ত অন্য আসামি হলেন মো. দেলোয়ার হোসেন, মো. মোরাদ হোসেন, মো. জাহিদুল ইসলাম, মো. শহীদুল ইসলাম, মো. কামাল হোসেন, মো. সামসাদ হোসেন ও মো. আনিছুল ইসলাম।

সোমবার (১৭ জুলাই) ঢাকার বিশেষ জজ আদালত-১০-এর বিচারক মোহাম্মদ নজরুল ইসলাম এই রায় দেন বলে জানান, সংশ্লিষ্ট আদালতের স্পেশাল পাবলিক প্রসিকিউটর আজাদ রহমান।

গত ১৫ জুন একই আদালত রায়ের জন্য ২৫ জুন দিন ধার্য করেন। তবে ওইদিন আসামিপক্ষ রায় ঘোষণা না করে আজ (সোমবার) করলেন।

২০১৯ সালের ২০ সেপ্টেম্বর সাত সশস্ত্র দেহরক্ষীসহ জি কে শামীমকে তার কার্যালয় থেকে আটক করে র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‌্যাব)। দীর্ঘ ১১ ঘণ্টা অভিযান চালিয়ে তাকে আটক করা হয়। এ সময় ১ কোটি ৮০ লাখ টাকা, ৯ হাজার ইউএস ডলার, ৭৫২ সিঙ্গাপুরের ডলার, ১৬৫ কোটি টাকার এফডিআর, অস্ত্র ও বিপুল পরিমাণ বিদেশি মদ জব্দ করা হয়।

এরপর জি কে শামীমের বিরুদ্ধে র‌্যাব বাদী হয়ে তিনটি মামলা করে। অস্ত্র আইনের মামলা নম্বর ২৮(০৯)১৯, মানিলন্ডারিং আইনের মামলা নম্বর ২৯(৯)১৯ ও মাদক আইনের মামলা নম্বর ৩০(৯)১৯।

তদন্ত শেষে ২০২০ সালের ৪ আগস্ট আদালতে জি কে শামীম ও তার সাত দেহরক্ষীর বিরুদ্ধে মানি লন্ডারিং আইনের মামলায় চার্জশিট দাখিল করেন মামলার তদন্ত কর্মকর্তা সিআইডির সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার আবু সাঈদ। এরপর ১০ নভেম্বর আসামিদের বিরুদ্ধে চার্জগঠন করেন আদালত। মামলাটিতে চার্জশিটভুক্ত ২৬ জন সাক্ষীর মধ্যে ২৩ জনের সাক্ষ্যগ্রহণ করেন আদালত।

পার্বত্যকন্ঠ নিউজে/এমএস 


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো সংবাদ