• সোমবার, ০৪ মার্চ ২০২৪, ০৫:৪০ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম
ঢাবিতে ভর্তিচ্ছুকদের জন্য ধারাবাহিকভাবে পার্বত্য চট্টগ্রাম ছাত্র পরিষদ পিসিসিপি’র ‘হেল্প ডেস্ক’ সঠিক তথ্যে ভোটার হয়ে স্মার্ট বাংলাদেশ বিনির্মানে ভুমিকা রাখতে হবে…ডেজী চক্রবর্তী মাটিরাঙায় জাতীয় বীমা দিবস উদযাপন জাতীয় বীমা দিবসে মানিকছড়িতে শোভাযাত্রা ও আলোচনা সভা ১নং কবাখালী সপ্রাবিতে পুরস্কার বিতরণ ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান এনায়েতপুরে মেয়েকে ইভটিজিং এর প্রতিবাদ করায় সাংবাদিককে মারধর, কিশোর গ্যাংয়ের লিডার সহ ৪ জন আটক বাঘাইহাট দারুল আরকাম ইবতেদায়ি মাদ্রাসার শিক্ষার্থীদের মাঝে পোশাক ও বার্ষিক ক্রীড়া পুরস্কার বিতরণ অনুষ্ঠিত গুইমারাতে সেনাবাহিনীর মানবিক সহায়তা প্রদান কোস্ট গার্ড পশ্চিম জোনের বিনামূল্যে চিকিৎসা সেবা ও ঔষধ বিতরণ আলীকদমে একুশে বই মেলায় বীর বাহাদুর এমপি

পার্বত্য চট্টগ্রাম অঞ্চলে মৎস্য সম্পদ উন্নয়ন প্রকল্পের আওতায় ৮১৪টি ক্রিক উন্নয়ন

মোহাম্মদ রফিকুল ইসলাম, ব্যুরো প্রধান (বান্দরবান) / ২৯২ জন পড়েছেন
প্রকাশিত : সোমবার, ৯ অক্টোবর, ২০২৩

বান্দরবানের লামায় মৎস্য অধিদপ্তরাধীন ‘পার্বত্য চট্টগ্রাম অঞ্চলে মৎস্য সম্পদ উন্নয়ন প্রকল্পের’ আওতায় উপজেলা পর্যায়ে স্টেকহোল্ডার ক্যাম্পেইন বিষয়ক কর্মশালা অনুষ্ঠিত হয়েছে। সোমবার (০৯ অক্টোবর) দুপুরে উপজেলা পরিষদ হলরুমে এই কর্মশালা অনুষ্ঠিত হয়।

কর্মশালায় সভাপতিত্ব করেন লামা উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ মোস্তফা জাবেদ কায়সার। এতে প্রধান অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন, উপজেলা চেয়ারম্যান মোঃ মোস্তফা জামাল। কর্মশালায় মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন ছিলেন বান্দরবান জেলা মৎস্য কর্মকর্তা অভিজিৎ শীল। অতিথি হিসেবে আরো উপস্থিত ছিলেন, লামা পৌরসভা মেয়র মোঃ জহিরুল ইসলাম, ভাইস চেয়ারম্যান মোঃ জাহেদ উদ্দিন স্টেকহোল্ডার প্রজেক্ট সহকারী পরিচালক আবদুল্লাহ আল হাসান সহ প্রমূখ। এছাড়া উপজেলা বিভিন্ন দপ্তরের কর্মকর্তা, সাংবাদিক, ইউপি চেয়ারম্যানগণ, প্রশিক্ষণ নিতে আসা ক্রিক মালিক, মৎস্য চাষী, জেলে ও প্রকল্পের সুবিধাভোগীরা।

জেলা মৎস্য কর্মকর্তা অভিজিৎ শীল বলেন, পার্বত্য চট্টগ্রাম অঞ্চলে মৎস্য সম্পদ উন্নয়ন ও মৎস্য চাষের মাধ্যমে মাছের উৎপাদন বৃদ্ধি, পার্বত্য জনগণের পুষ্টি চাহিদা পূরণ, কর্মসংস্থান সৃষ্টি ও আয় বৃদ্ধি এবং সরকারের দারিদ্র হ্রাসকরণই প্রকল্পের উদ্দেশ্য। তাছাড়া প্রকল্পের চারটি সুনির্দিষ্ট উদ্দেশ্য রয়েছে। তা হল- ক্রিক/জলাশয়/জলাধারের পরিবেশ ও প্রতিবেশ উন্নয়নের মাধ্যমে মাছের উৎপাদন ও উৎপাদনশীলতা বৃদ্ধি, ক্রিক-সংশ্লিষ্ট সুফলভোগীদের মাছ চাষের বিভিন্ন প্রযুক্তির বিষয়ে দক্ষতা উন্নয়ন, পার্বত্য চট্টগ্রাম অঞ্চলের অনগ্রসর/প্রান্তিক জনগোষ্ঠির পুষ্টি চাহিদা পূরণ ও সংশিষ্ট সুফলভোগীদের আর্থ-সামাজিক অবস্থার উন্নয়ন এবং অবকাঠামো উন্নয়নের মাধ্যমে মৎস্য অধিদপ্তরের সক্ষমতা বৃদ্ধি।

প্রকল্পের প্রধান কার্যক্রম গুলো হচ্ছে- তিন পার্বত্য জেলায় ২৬টি উপজেলায় ৮১৪টি ক্রিক উন্নয়নের জন্য বাঁধ ও ড্রেন নির্মাণ, প্রাকৃতিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত ৮০টি ক্রিক মেরামত ও সংরক্ষণ, প্রকল্প মেয়াদের প্রকল্প এলাকায় ৭৫৪০জন সুফলভোগীদের প্রশিক্ষণ প্রদানে দক্ষতা উন্নয়ন, ৩৬০০ দরিদ্র মৎস্যজীবি জেলে পরিবারকে বিকল্প কর্মসংস্থানে সহায়তা প্রদান, ৭টি মাছের অভয়াশ্রম স্থাপন এবং প্রকল্প এলাকায় সম্ভাবনাময় ৪টি মৎস্য চাষ প্রযুক্তি প্যাকেজের মাধ্যমে ৮১৪টি প্রদর্শনী খামার স্থাপন।

এছাড়া প্রকল্পের আওতায় রাঙ্গামাটিতে ১টি জেলা মৎস্য অফিস, ৩টি পার্বত্য জেলায় ১৫টি উপজেলা মৎস্য অফিস নির্মাণ করা হবে। প্রকল্পের আওতায় ৩টি হ্যাচারী ও ১টি ট্রেনিং সেন্টার মেরামত ও সংষ্কার করা হবে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো সংবাদ