• রবিবার, ১৪ এপ্রিল ২০২৪, ০১:১৯ পূর্বাহ্ন

গোয়ালন্দে রসুনের বাম্পার ফলন দাম ভালো কৃষকের মুখে হাসি

সাইফুর রহমান পারভেজ, গোয়ালন্দ উপজেলা প্রতিনিধি / ১৫১৫ জন পড়েছেন
প্রকাশিত : সোমবার, ১৯ ফেব্রুয়ারী, ২০২৪

 

সাইফুর রহমান পারভেজ, গোয়ালন্দ উপজেলা প্রতিনিধি

রাজবাড়ীর গোয়ালন্দে পদ্মা নদীর চরাঞ্চলে আবাদি জমি থেকে উত্তোলন করা রসুনের ঝাঁজালো ঘ্রাণে পথিক ও স্থানীয় লোকজন মাতোয়ারা। সেই সাথে ভালো দাম পেয়ে কৃষকদের চোখে মুখে ফুটে উঠেছে আনন্দের হাসি।

মাত্র ৪টি ইউনিয়ন ও ১টি পৌরসভা নিয়ে গঠিত গোয়ালন্দ উপজেলা। কৃষি অফিসের তথ্যমতে এ বছর ১৪৫০ হেক্টর জমিতে রসূনের আবাদ হয়েছে। কৃষকরা জানান এ বছর বিঘা প্রতি ৪০-৪৫ মন রসুন উৎপাদন হচ্ছে। তবে বেড়ীবাঁধ বেষ্টিত এলাকার চেয়ে পদ্মা পাড়ের চরাঞ্চলের অধিকাংশ জমিতে রসূনের আবাদ বেশী হয়েছে। গোয়ালন্দে সাধারণত স্থানীয় জাতের রসুন আবাদ করা হয়েছে।

সরেজমিন পরিদর্শনকালে উপজেলার দৌলতদিয়া, দেবগ্রাম, উজানচর ও ছোটভাকলা ইউনিয়নের বিভিন্ন অঞ্চল ঘুরে দেখা যায়, মাঠেে রসুন আর রসুন। কৃষকরা ক্ষেতে বসে কেউ রসুন তুলছে, কেউ আবার ক্ষেতের মধ্যে রোদে রসুন শুকাচ্ছেে কেউ বস্তা জাত করছে। কেউবা ভ্যানে করে বিভিন্ন হাট বাজারে নিয়ে যাচ্ছে। কোথাও আবার বেপারীরা মাঠ থেকেই কৃষকদের সাথে দাম দর মিটিয়ে রসুন কিনে নিচ্ছেন। কেউবা আবার তোলার আগেই ক্ষেত ধরে কিনে নিয়ে নিজেদের শ্রমিক খরচে ক্ষেত থেকে তুলে নিয়ে যায়।প্রায় জমিতেই প্লাস্টিকের নেট বস্তায় সাদা রঙের রসুন ভরা সারি সারি বস্তা দাঁড় করানো। নারী পুরুষ বা কিষান কিষাণী এমকি তাদের শিশুদের রসুন সংগ্রহের কাজ করতে দেখা যায়। রসুন তোলার পর ক্ষেতে বসে কাঁচি, বটি, দা, ছুরি দিয়ে রসুনের গাছ শিকর কেটে পরিস্কার করে বস্তায় ভরে বাজারজাত করা হচ্ছে। সময় রসুনের ঝাঁঝালো ঘ্রানে নাক মুখ তেঁতেঁ উঠছিল। রসুনের ঝাঁজে চোখে পানি এসে যায়। তবে রসুনের ঘ্রান অনেক দুর প্রর্যন্ত বাতাসে ভেসে বেড়াচ্ছে।
কৃষর মো: আলমগীর মোল্লা জানান, এবার তারা ভাল ফলন পেয়ে বেজায় খুশি। দামও ভালো পাচ্ছেন। প্রতি মন রসুন ৫ থেকে সারে ৫ হাজার টাকা দরে বিক্রি করছে বলে তারা জানান।
তবে কোন কোন কৃষক আক্ষেপের সুরে বলেন টেলিভিশন ও খবরে আমরা যে হারে রসুনের চরা দর দেখি আমরা সে হারে দাম পাইনা। আমাদের কাছ থেকে যে কোনো ফসল ব্যাবসায়ীদের কাছে গেলেই তার দাম বেড়ে যায়। আমাদের কাছ থেকে কমদামে কিনে বাজারে নিয়ে কারসাজি করে তারা চরাদামে বিক্রি করে। আমরা ন্যায্য দাম পাইনা। এটাতো আপনারা দ্যাখেন না।

দেবগ্রাম ইউনিয়নের তেনাপচা, উত্তর চর পাচুরিয়া, কাওলজানি, মুন্সি পাড়া, অন্তার মোড়, দৌলতদিয়া ইউনিয়নের কুশাহাটা, বেতকা, রাখালগাছি, বাহেরচর, বেপারিপাড়া, মজলিসপুর, খালেক মৃধার পাড়া,পরশ উল্লার পাড়া, সিরাজ খাঁর পাড়া, তমিজদ্দি মৃধা পাড়া, উজানচর ইউনিয়নের মৈজদ্দন মন্ডের পাড়া, জাম তলা, দরাপের ডাঙ্গা, দুদুখান পাড়া, ছোট ভাকলা ইউনিয়নের বিভিন্ন এলাকার মাঠ ঘুরে কৃষকদের সাথে আলাপকালে রসুন আবাদ ও বাজারজাত করনের সুবিধা অসুবিধার বিষয়ে নানা তথ্য পাওয়া যায়। তারা জানান বর্তমানে কৃষি অফিস থেকে সার ও নানা জাতের বীজ বিনামূল্য প্রদান করা হয়। কিন্তু স্থানীয় জনপ্রতিনিধিদের স্বজনপ্রীতির কারনে প্রকৃত কৃষকেরা ওই সব বিনামূল্যে বিতরণকৃত কৃষি উপকরণ পায়না।

এ সময় তমিজদ্দিন মৃধা পাড়ার শামসু মোল্লা, মোহাম্মদ আলী, শাহাদাত হোসেন, আলামীন সাজাই বেপারী, খালেক মৃধার পাড়া মো : আলমগীর মোল্লা, সিরাজ খাঁ পাড়ার নিজাম খান, আশিকুর রহমান, আতিক তারেক সহ একাধিক কৃষক বলেন, আলহামদুলিল্লাহ এ বছর রসুনের ফলন ভালো হয়েছে। অন্য বছেরর তুলনায় এবার দামও ভালো পেয়েছি। তবে কৃষি কর্মকর্তারা মাঠে এসে আমাদের খোজ খবর নিলে জমির উর্বরতা অনুযায়ী আমরা আরো ভালো ফসল ফলাতে পারবো। আগে ইমরান আর ওমর আলী আমাদের সাথে যোগাযোগ করতো। এখন আর মাঠ পর্যায়ে কাউকে পাওয়া যায় না। তবে এ বিষয়ে ইউনিয়ন কৃষি উপসহকারী কর্মকর্তা ইমরান হোসেন বলেন, আমাদের দায়িত্ব সব সময় এক জায়গায় থাকে না। যখন যে এলাকায় যার দায়িত্ব হয় তখন সেই তার এলাকা দেখি।

গোয়ালন্দ উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মোঃ খোকন উজ্জামান, জানান, গোয়ালন্দের কৃষকরা এখন আগের চেয়ে অনেকটা সচেতন। প্রত্যেক মাঠে এবার ভালো রসুনের আবাদ হয়েছে। কৃষকরা দামও ভাল পেয়ে খুশি। প্রশিক্ষণ দিয়ে তাদের আরো সচেতন ও অভিজ্ঞ করে নতুন প্রযুক্তির চাষাবাদ পদ্ধতির মাধ্যমে ফসল উৎপাদন বৃদ্ধি করে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর কৃষি বিষয়ক স্বপ্ন পূরণে আমরা কাজ করে চলেছি। এবছরে এই উপজেলায় ১৫ শত ৭০ হেক্টর জমিতে রসুন আবাদ হয়েছে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো সংবাদ