• রবিবার, ১৬ জুন ২০২৪, ০৫:২৮ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম
ঈদ উপলক্ষে হরিহরনগর ইউনিয়ন পরিষদে ভিজিএফের চাল বিতরণ বাগেরহাটে বেআইনীভাবে প্রস্তুত হচ্ছে শামুকের খোলস পুড়িয়ে চুন ২ এপিবিএন, মেঘলা, বান্দরবান কর্তৃক একজন মাদক ব্যবসায়ী গ্রেফতার দেশ সেরা এটিও কাপ্তাইয়ের আশীষ কুমার আচার্য্য বাকী আছে ১দিন-গরু বাজারে ভীড় ক্রেতা ও বিক্রেতার শার্শা বেনাপোল বন্দরের ৫ দিন বন্ধ থাকবে আমদানি-রপ্তানি মোংলায় দিন দুপুরে দোকান ঘর ভাংচুর ও জবর দখলের চেষ্টা লংগদুতে বজ্রপাতে নিহত ৪ নিখোঁজ ১ মহালছড়ি সেনা জোনের উদ্যোগে ঈদ উপহার সামগ্রী বিতরণ মাটিরাঙায় সেনাবাহিনীর বিশেষ মানবিক সহায়তা কাপ্তাই শিল্প এলাকা হতে উদ্ধার ১২ টি পান কৌড়ি  শেখ রা‌সেল এভিয়ারী এন্ড ইকো-পার্কে হস্তান্তর  আসছে সামনে ঈদুল আযহা উপলক্ষে কোরবানির গরুর হাট

বান্দরবানে বেনজিরের কি কি সম্পত্তি রয়েছে তা প্রশাসনের কাছে জানতে চেয়েছে দুদক

মোহাম্মদ রফিকুল ইসলাম, ব্যুরো প্রধান বান্দরবানঃ / ১৪৭ জন পড়েছেন
প্রকাশিত : বুধবার, ৫ জুন, ২০২৪

মোহাম্মদ রফিকুল ইসলাম, ব্যুরো প্রধান, বান্দরবান

আগামীকালের মধ্যেই বান্দরবানে পুলিশের সাবেক আইজিপি বেনজির আহমেদের কি কি সম্পত্তি রয়েছে তার হিসাব দিতে জেলা প্রশাসকের নির্দেশ দিয়েছে দুদক। এ নির্দেশনার পর বেনজিরের সম্পত্তির খোঁজ নিতে মাঠে নেমে পড়েছেন প্রশাসনের কর্মকর্তারা। ইতিমধ্যে বান্দরবান সদর উপজেলার সুয়ালক ইউনিয়নের মাঝেরপাড়া এলাকায় বেশ কিছু জায়গা জমির খোঁজ পেয়েছে প্রশাসন।

বান্দরবানের জেলা প্রশাসক শাহ্ মোজাহিদ উদ্দিন জানিয়েছেন গত কয়েকদিন আগে দুর্নীতি দমন কমিশন ঢাকা থেকে বেনজির আহমেদের নামে কি সম্পত্তি রয়েছে তার খোঁজ দিতে একটি চিঠি দেওয়া হয়। আগামী কাল বৃহস্পতিবার ৬ই জুনের মধ্যে সম্পত্তির হিসাব ঢাকায় পাঠানোর জন্য ওই চিঠিতে বলা হয়েছে। সে অনুযায়ী জেলা প্রশাসনের ভূমি বিভাগ থেকে সব ধরনের কাগজপত্র তলব করা হয়েছে। তদন্তের পর বেনজির আহমেদের কি কি সম্পত্তি রয়েছে তার হিসাব ঢাকায় পাঠানো হবে। সুয়ালকে সম্পত্তির খোঁজ পেলেও লামার সম্পত্তির বিষয়ে এখনো কোনো কাগজপত্র পাওয়া যায়নি। তবে দ্রুত সব সম্পত্তির হিসাব দুদুকে পাঠানো হবে বলে জানিয়েছেন জেলা প্রশাসক।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে বেনজির আহমেদ র‍্যাবের মহাপরিচালক থাকাকালীন সময়ে বান্দরবানের সুয়ালক ইউনিয়নের মাঝের পাড়া এলাকায় প্রায় ৭০ একর জায়গা দখলে নিয়ে নেন। সেখানে রাবার হর্টিকালচার লিজ ও মানুষের ক্রয়কৃত জায়গাও রয়েছে। ওই জায়গা দেখিয়ে গত বছর বনবিভাগ থেকে প্রায় ১৪ হাজার ঘনফুট গাছের পারমিট করেন বেনজির। প্রায় অর্থ লক্ষ টাকা হাতিয়ে নেওয়া হয় গাছ বিক্রি করে। ওই জায়গায় গরু ও মৎস্য খামার সেই সাথে আলিশান বাংলো করা হয়।

অন্যদিকে লামার সরই ইউনিয়নেও বেনজিরের আরো শতাধিক একর জায়গার খবর পাওয়া গেছে। সেখানকার ভুক্তভোগীরা অভিযোগ করে বলেছেন তৎকালীন সময়ে পুলিশের কিছু কর্মকর্তা ও রাজনৈতিক দলের স্থানীয় বেশ কিছু নেতা বেনজিরের নাম ব্যবহার করে প্রচুর সম্পত্তি দখলে নিয়েছে। স্থানীয়রা প্রশাসনের কাছে এসব দখলকৃত জায়গা জমি তাদের ফেরত দেওয়ার দাবি জানিয়েছেন।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো সংবাদ