Header Border

ঢাকা, বুধবার, ২৭শে মে, ২০২০ ইং | ১৩ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ (গ্রীষ্মকাল) ২৭°সে
শিরোনাম :
কোয়ারেন্টিনে ১৫,০০০ রোহিঙ্গা, আক্রান্ত সংখ্যা ২৯ কমিউনিটি ট্রান্সমিশন শুরুর আশঙ্কা মাদারীপুরে এক পুলিশ সদস্য সহ ০৪জন করোনা আক্রান্ত ঘোরাঘাটে পানি নিষ্কাসনকে কেন্দ্র করে প্রতিবেশীর হাতে নিহত ১ দি চেঙ্গী চাইল্ড হোম সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের নির্মাণ কাজের শুভ উদ্বোধন কাপ্তাই জল বিদ্যুৎ কেন্দ্রের প্রবেশ মুখ স্মরন কালের লকডাউন মাদারীপুরে মোটরসাইকেল দূর্ঘটনায় নিহত ১ ঈদে ভবঘুরে পাগলদের মাঝে খাবার বিতরণ করলেন জনসেবা যুব কল্যাণে আমরা চোলাই মদসহ মাগুরায় দুই মাদক বিক্রেতা গ্রেফতার পানছড়িতে ঈদ সামগ্রী বিতরণ করলো জুনাব আলী ফাউন্ডেশন রাঙামাটিবাসীকে কাউখালী উপজেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক শাহীন আলমের ঈদ শুভেচ্ছা

‘আমাদের মসজিদ জ্বলেছে জানি, কিন্তু মন্দিরে আঁচ লাগতে দেব না’

দৈনিক পার্বত্য কন্ঠ ডট কম

নিউজ ডেস্ক :

দিল্লি সংঘর্ষে হাহাকারের মধ্যেই সম্প্রীতির এক উজ্জ্বল ছবি উঠে এল ভারতের পুরনো মুস্তাফাবাদের বাবুনগরে। মুসলিম অধ্যুষিত অঞ্চলে শিব মন্দির রক্ষায় ত্রাতা হয়ে উঠলেন মুসলিমরাই।

আশেপাশের অঞ্চলে গোষ্ঠী সংঘর্ষ ভয়ঙ্কর রূপ নিলেও এই অঞ্চলের বাসিন্দারা কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে রুখে দিয়েছেন সংঘর্ষ। তুলে ধরেছেন সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির এক অনন্য নজির। দিল্লি বিশ্ববিদ্যালয়ের অন্তর্গত দেশবন্ধু কলেজের পড়ুয়া মোহম্মাদ হাসিন এমনই এক জন।

বছর চব্বিশের এই পড়ুয়ার কথায়, ‘‘পরিস্থিতি যেমনই হোক, আমরা চেয়েছিলাম সব সময়েই ঐক্যবদ্ধ থাকতে। যাতে হিংস্র জনতার মোকাবিলা করা যায়।’’

যে কোনও মূল্যে পারস্পরিক বিশ্বাস ও সৌভ্রাত্র অটুট রাখাই ছিল তাদের সংকল্প। সে জন্যে মন্দির বাঁচাতে ওই কয়েকটা দিন পালা করে নজরদারি করেছেন তারা। হাসিনের কথায়, ‘‘দুই ধর্মের মানুষই ছোট ছোট দল তৈরি করে সতর্ক থেকেছে। পরিস্থিতি মোকাবিলায় হাতে তুলে নিয়েছিলাম লাঠি।’’

মন্দির থেকে ঢিল ছোড়া দূরত্বে থাকেন কামরুদ্দিন। স্থানীয় চায়ের দোকানে খাবার সরবরাহ করে পেট চলে তার। কামরুদ্দিনের গলাতেও সম্প্রীতির সুর। ‘‘দীর্ঘদিন ধরে আমরা একসঙ্গে রয়েছি। কখনও সংঘর্ষের কথা ভাবতেই পারিনি। এই কঠিন সময়ে মানবতা রক্ষা করাই সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ। মসজিদ জ্বলে গিয়েছে জানি, কিন্তু মন্দিরে কোনও আঁচ লাগতে দেব না।’’

গত ৩০-৩৫ বছর ধরে মন্দিরের তত্ত্বাবধায়ক রীনা (৫২)। দৈনন্দিন পূজার সমস্ত দায়িত্বই তার। এই বিপদের সময়ে তিনিও ধর্ম বিচার না করে আস্থা রেখেছেন ভিন্ন ধর্মের ভাইদের উপরেই। তুলে দিয়েছেন মন্দিরের চাবি।

‘‘ওরা তো নিজেদেরই লোক। গত কয়েক দিন মন্দিরে যেতে পারিনি। কিন্তু আমি নিশ্চিত ছিলাম, ওরা থাকতে মন্দিরের কোনও ক্ষতি হবে না। এত দিন একসঙ্গে রয়েছি। পরিস্থিতি খারাপ বলে কি সব বদলে যাবে? আমরা পৃথক ভাবে ধর্মাচরণ করলেও ঈশ্বর তো একই,’’ বলেন রীনা।

তাই মুসলিম অধ্যুষিত অঞ্চলেও নিজের নিরাপত্তা নিয়ে চিন্তিত নন ৫২ বছরের এই মহিলা।

শেয়ার করুন

আপনার মতামত লিখুন :

আরও পড়ুন

আবারও প্রংশসিত হলো মানবতার ফেরিওয়ালা প্রকৌশলী সুভাষ চৌধুরী ঈদ উপহার প্রদান করে
খাগড়াছড়িতে মিনারেল ওয়াটার দিচ্ছে রেড ক্রিসেন্ট
মহিমান্বিত লাইলাতুল কদর আজ
এবার দিনাজপুরে এশিয়া মহাদেশের সবচেয়ে বড় ঈদগাহ ময়দানে ঈদের জামাত অনুষ্ঠিত হচ্ছে না
সরকারি চাকরিজীবী সন্তানদের অবহেলিত মায়ের ঘরে খাদ্য সামগ্রী পৌঁছে দিলেন, মহেশখালী থানার ওসি
ডিসির হাতে ৫০হাজার ১১টাকা তুলে দিলো এসএসসি ২০১১ ব্যাচের শিক্ষার্থীরা

আরও খবর

সম্পাদক  প্রকাশক : এম শাহীন আলম।