• বুধবার, ১৭ জুলাই ২০২৪, ১১:২৪ অপরাহ্ন
শিরোনাম
খাগড়াছড়িতে পার্বত্য চট্টগ্রাম পাহাড়ি ছাত্র পরিষদের বিক্ষোভ মিছিল বেলকুচি উপজেলা আইন-শৃঙ্খলা কমিটির মাসিক সভা অনুষ্ঠিত শিক্ষার্থীদের শিক্ষা অর্জনের মাধ্যমে নিজকে গড়ে তুলে স্মার্ট বাংলাদেশ গঠনে ভুমিকা রাথতে হবে -বাবুল দাস কাপ্তাই জাতীয় উদ্যানে লজ্জাবতী বানর অবমুক্ত কাপ্তাই বিএসপিআই শিক্ষার্থীদের ওপর ফের হামলা, ৪ জন আহত এম কে বাঘাবাড়ী ঘি কোম্পানির উৎপাদনকারী মো: কামাল উদ্দিনের ১ বছরের কারাদণ্ড কোটা সংস্কারের দাবিতে  কাপ্তাই বিএসপিআই এ শিক্ষার্থীদের বিক্ষোভ মিছিল দিনেদুপুরে কৃষকের বাড়িতে হামলা লুটপাট রাঙামাটি সদর জোনের বিনামূল্যে চিকিৎসা সেবা ও ঔষধ প্রদান আলীকদম সেনা জোন কর্তৃক মানবিক সহায়তা প্রদান পানছড়ি মাদ্রাসায় অব্যবস্থাপনা ও অবৈধ নিয়োগ বাতিলের দাবিতে মানববন্ধন খাগড়াছড়িতে মাদকদ্রব্যের অপব্যবহার ও অবৈধ পাচারবিরোধী আন্তর্জাতিক দিবস উপলক্ষ্যে র‍্যালি ও আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত

বান্দরবানে ১৫ লাখ চারা বিতরণ করবে ‘বনায়ন’

মোহাম্মদ রফিকুল ইসলাম, ব্যুরো প্রধান বান্দরবানঃ / ৮৫ জন পড়েছেন
প্রকাশিত : বুধবার, ৩ জুলাই, ২০২৪

মোহাম্মদ রফিকুল ইসলাম, ব্যুরো প্রধান বান্দরবানঃ
এবছর বর্ষায় সারাদেশের ন্যায় বান্দরবান জেলায় ১৫ লাখ চারা বিতরণ করবে ‘বনায়ন’। বান্দরবান রিজিয়নে বনায়ন ৪৩ বছরে এপর্যন্ত প্রায় ২ কোটি বনজ, ফলজ ও ঔষধি গাছের চারা বিতরণ করেছে।

বিশ্ব পরিবেশ দিবস ২০২৪-এ ‘গাছ লাগিয়ে যত্ন করি, সুস্থ প্রজন্মের দেশ গড়ি’ এই প্রতিপাদ্য’কে সামনে রেখে বান্দরবান জেলার ৭টি উপজেলায় ও পার্শ্ববর্তী চকরিয়া উপজেলায় চারা বিতরণ কর্মসূচি শুরু করেছে দেশের বেসরকারি খাত পরিচালিত সর্ববৃহৎ বৃক্ষরোপণ কর্মসূচি ‘বনায়ন’। বন বিভাগের দেশব্যাপী বৃক্ষরোপণের আহ্বানে সাড়া দিয়ে ১৯৮০ সালে বনায়ন প্রকল্পের যাত্রা শুরু হয়।

এ কর্মসূচি সফলভাবে বাস্তবায়নের জন্য বান্দরবানে ৮টির বেশি নার্সারিতে এই চারাগুলো তৈরি করা হয়েছে। পরিবেশগত ভারসাম্য রক্ষায় অবদান রাখতে এই কার্যক্রমের আওতায় এলাকার কৃষক, বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান ও উদ্যোক্তা পর্যায়ে এখন পর্যন্ত প্রায় ২ কোটি বনজ, ফলজ ও ঔষধি জাতীয় গাছের চারা বিনামূল্যে বিতরণ করা হয়েছে। এবছর বান্দরবান জেলার চারা বিতরণের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে ১৫ লাখ।

এই কর্মকাণ্ডকে আরও এগিয়ে নিয়ে যাওয়ার উদ্দেশ্যে কৃষকদের সহযোগিতায় ‘বনায়ন’ বান্দরবানে ১৬টির অধিক ঔষধি বাগান তৈরী করেছে। এই উদ্যোগের মাধ্যমে টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা এসডিজি-১৫ (স্থলজ জীবন) অর্জনে সরাসরি অবদান রাখছে বনায়ন। এছাড়া, ২০৩০ সালের মধ্যে দেশের মোট ভূমির ২৫ শতাংশ বৃক্ষ দ্বারা আচ্ছাদনে বাংলাদেশ সরকারের লক্ষ্য অর্জনে সহায়ক ভূমিকা পালন করছে এই উদ্যোগ।

বান্দরবান জেলার আওতাধীন লামা উপজেলায় সড়ক বনায়ন, বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান ও পর্যটনকেন্দ্রে ফলজ, ঔষধী ও বনজ বাগান করা হয়েছে। তার মধ্যে উল্লেখযোগ্য চকরিয়া-লামা-আলীকদম সড়ক, মিরিঞ্জা পর্যটন, কুমারী ঔষধী বাগান তেরি। দেশজুড়ে ২২টি’র বেশি জেলায় পরিচালিত হচ্ছে ‘বনায়ন’ প্রকল্পের কার্যক্রম।

প্রসঙ্গত, ‘বনায়ন’ পাঁচবার সম্মানসূচক প্রধানমন্ত্রীর জাতীয় পুরস্কার এবং একবার প্রধান উপদেষ্টার জাতীয় পুরস্কার পেয়েছে। পাশাপাশি, গ্রিন লিডারশিপের জন্য ‘এন্টারপ্রাইজ এশিয়া’ থেকে বনায়ন অর্জন করেছে ‘এশিয়া রেসপন্সিবল অন্ট্রারপ্রনারশিপ অ্যাওয়ার্ড’ এবং এসডিজি অন্তর্ভুক্তি শ্রেণিতে অর্জন করেছে ‘বাংলাদেশ ইনোভেশন অ্যাওয়ার্ড ২০২১’। সম্প্রতি বৃক্ষরোপণের উদ্যোগ গ্রহণের মাধ্যমে ইতিবাচক প্রভাব রাখার জন্য এসডিজি ব্র্যান্ড চ্যাম্পিয়ন অ্যাওয়ার্ডস ২০২৩ -এ জলবায়ু ও পরিবেশ বিভাগে সম্মানজনক পুরস্কারে ভূষিত হয়েছে বনায়ন।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো সংবাদ