• শুক্রবার, ২১ জুন ২০২৪, ০৪:০৫ অপরাহ্ন
শিরোনাম
কাপ্তাই থানা পুলিশ এর অভিযানে নোয়াখালী এবং ফেনী হতে গ্রেফতারী পরোয়ানাভুক্ত দুই আসামি গ্রেফতার রাজস্থলী উপজেলা পরিষদের নির্বাচিত জনপ্রতিনিধিদের দায়িত্বভার গ্রহণ রাজারহাটে নদী ভাঙ্গন এলাকা পরিদর্শনে কুড়িগ্রামের এমপি কাপ্তাইয়ে নব নির্বাচিত উপজেলা চেয়ারম্যান ও ভাইস চেয়ারম্যানদের বরণ ও বিদায় মামলায় কেউ জেলে বাকীরা পলাতক, ফাঁকা পেয়ে দুই গেরস্তের বাড়ি লুট কাপ্তাই সড়ক দূর্ঘটনায় বন প্রহরী নিহত কাপ্তাই মাসিক আইন শৃঙ্খলা কমিটির সভা অনুষ্ঠিত  সাজেকে বিদেশি মদসহ আটক ৫ গুইমারায় সড়ক দুর্ঘটনায় নারী ও শিশুসহ আহত ২০ আশংকা জনক-২ খাগড়াছড়িতে মোটর সাইকেল এ প্রাণ গেলো যুবকের ঈদের ছুটিতে আলুটিলা সহ বিভিন্ন পর্যটন কেন্দ্র গুলোতে বেড়েছে পর্যটক সমাগম বাঘাইছড়িতে আঞ্চলিক দলের গোলাগুলিতে শান্তি পরিবহনের সুপারভাইজার নিহত

একই জায়গা অনেকের কাছে বিক্রি, প্রতারক মালিকের বিরুদ্ধে সংবাদ সম্মেলন

মোহাম্মদ রফিকুল ইসলাম, ব্যুরো প্রধান বান্দরবানঃ / ২৩৬ জন পড়েছেন
প্রকাশিত : সোমবার, ৩ জুন, ২০২৪

মোহাম্মদ রফিকুল ইসলাম, ব্যুরো প্রধান বান্দরবানঃ

বান্দরবানের লামা উপজেলার ফাইতং ইউনিয়নে মাহাবুব রহমান নামের এক প্রতারক ভ‚মি মালিকের বিরুদ্ধে যৌথ সংবাদ সম্মেলন করেছে ভুক্তভোগী দুই পরিবারের লোকজন। সোমবার (০৩ জুন) বিকেল ৫টায় ফাইতং ইউনিয়নের নয়াপাড়া এলাকায় বিরোধীয় ভ‚মিতে এই সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করা হয়। সংবাদ সম্মেলন প্রতারক ভ‚মি মালিক মাহাবুব রহমান এর বিরুদ্ধে জমি ক্রেতা শামশুল আলমের ছেলে মোঃ আকতার হোসেন লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন এবং অপর ক্রেতা মাশুক আহামদ এর ছেলে মোঃ ফোরকান উদ্দিন উপস্থিত ছিলেন।

লিখিত বক্তব্যে মোঃ আকতার হোসেন বলেন, লামা উপজেলার ফাইতং ইউনিয়নের মৃত হাজী আবদু জলিলের পুত্র মাহাবুব রহমান লামা উপজেলার ফাইতং ইউনিয়নের ৩০৬ নং ফাইতং মৌজার ২৮ নং খতিয়ানের ২ একর ৮০ শতক জমির মালিক। উক্ত খতিয়ানের সম্পূর্ণ জমি একই এলাকার আহমদ হোছনের ছেলে মাশুক আহমদ ও ছালামত আলীর পুত্র সামশুল আলমের নিকট ৩ লাখ ১৫ হাজার টাকা মূল্য নির্ধারণ করে গত ৫ অক্টোবর ১৯৯৪ সালে বায়নানামা দলীল মূলে বিক্রি করেন। যার দলিল নং- ৬১৫/১৯৯৪। বিক্রির পর থেকে বিভিন্ন অজুহাতে বিক্রেতা নামজারি করে দিতে তালবাহানা করে। এই নিয়ে উভয়পক্ষ আদালতে মামলা করে যা এখনো চলমান রয়েছে। কিন্তু মাহাবুব রহমান এই ফাঁকে প্রতারণার আশ্রয় নিয়ে উক্ত রেজিষ্ট্রেশন আজ দেবে কাল দেবে বলে বছরের পর বছর কালক্ষেপণ করে আসছে। এই অবস্থায় গোপনে মাহাবুব রহমান তার স্ত্রী শাহানারা বেগম, পুত্র মোঃ রিয়াজ উদ্দীন ও মোহাং হোচন এর পুত্র আহামদ উল্লাহর নিকট একই খতিয়ান থেকে ২ একর ৩০ শতক জমি বায়নানামা মূলে বিক্রি করেন। যার দলিল নং- ১৩৪৬/২০০৯। অপর দিকে এই মালিক এলাকার মৃত হাজী ইসলামের পুত্র হাফেজ মোঃ জাহিদুলের কাছে উক্ত খতিয়ান থেকে গত ২০১৮ সালের ৩১ জুলাই ২০ শতক (যার দলিল নং ৪৩১/২০১৮), ২০২২ সালে শহিদুল্লাহ মিন্টুর নামে ৩৯ শতক (যাহার দলিল নং- ৩১৪/২২), জাহেদুল ইসলামের কাছে ২০২২ সালে ৫৪ শতক (যা বায়নানামা দলিল নং ৮৬/২২), আবুল কাশেম ৬ শতক (যা বায়নানামা দলিল নং- ৩১৩/২২) এবং জাফর আলম নামে ২ দুই একর ১০ শতক (যাহার বায়নানামা দলীল নং- ৬২৭/২২) প্রদান করেন।

মাহাবুব রহমানের প্রতারণা ও সটামির সংবাদ পেয়ে ক্রেতা মাশুক আহমদ ও সামশুল আলম গং লামা উপজেলা ম্যাজিষ্ট্রেট আদালতে একটি মামলা দায়ের করেন। যার মামলা নং- সিআর ২২৪/২২ইং। এদিকে বছরের পর বছর রেজিষ্ট্রেশন না পেয়ে আদালতে ঘুরতে ঘুরতে জমি গ্রহীতা মাশুক আহমদ ও সামশুল আলম অবশেষে মারা যান। গত ৩০ বছর থেকে এই বিরোধ চলে আসছে এবং দুইটি পরিবারের মানুষ আইনী বেড়াজালে পিষ্ঠ হয়ে পথের ভিখারী হচ্ছে। ভুক্তভোগী পরিবারের ছেলে/মেয়েরা গণমাধ্যমের মাধ্যমে প্রতারক মাহাবুব রহমানের বিরুদ্ধে আইনানুক ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য সরকারের সহায়তা কামনা করেন।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো সংবাদ