• মঙ্গলবার, ২৫ জুন ২০২৪, ০৫:১০ অপরাহ্ন
শিরোনাম
কাপ্তাই ইফা’তে বিদায় -বরণ সংবর্ধনা অনুুষ্ঠিত  বিলাইছড়িতে বর্ণিল আয়োজনে আওয়ামী লীগের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী পালিত ফকিরহাটে বাসের সাথে মটরসাইকেলের সংঘর্ষ, শিশুসহ নিহত-২  আওয়ামী লীগের ৭৫ তম জয়ন্তি উদযাপন উপলক্ষে কাপ্তাইয়ে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত খাগড়াছড়িতে পার্বত্য চট্টগ্রাম এলাকায় আর্থ-সামাজিক উন্নয়নে ইক্ষু, সাথী ফসল ও গুড় উৎপাদন শীর্ষক কর্মশালা খাগড়াছড়িতে পুলিশ নারী কল্যাণ সমিতি (পুনাক) বিক্রয় কেন্দ্রের শুভ উদ্বোধন অনুষ্ঠিত খাগড়াছড়িতে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের ৭৫তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী পালিত লামা হাসপাতালে এমএসআর মালামাল সরবরাহে ব্যাপক অনিয়ম রাজস্থলীতে আওয়ামী লীগের ৭৫ তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী পালিত আলীকদম মারাইংতং পাহাড়ে বেড়াতে এসে মেডিকেল ছাত্রের মৃত্যু পানছড়িতে মানবসেবা ও শিক্ষা কল্যাণ ফাউন্ডেশন এর দ্বিতীয় তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী ও কৃতি শিক্ষার্থী ২০২৪ অনুষ্ঠিত মেহেদীর রং না মুছতেই বাবার বাড়িতে মেয়ের আত্মহত্যা 

জুলাইয়ে ভয়ঙ্কর রূপ ডেঙ্গুর, আগস্টে কী হবে?

মাসুদ রানা, স্টাফ রিপোর্টার / ১০৮ জন পড়েছেন
প্রকাশিত : মঙ্গলবার, ১ আগস্ট, ২০২৩

অতীতের সব রেকর্ড ভেঙে জুলাই মাসে ভয়ঙ্কর রূপে ছিল ডেঙ্গু। আক্রান্ত ও মৃত্যু দুই হিসাবেই ২০১৯ সালকে ছাড়িয়ে গেছে। গত ২৪ ঘণ্টায় চার জনসহ ওই মাসে মৃত্যু ২০৪ জন। এমন পরিস্থিতি চলতে থাকলে ভয়াবহতার মাত্রা আরো বাড়ার শঙ্কা বিশেষজ্ঞদের। এ অবস্থায় মৃত্যু ও আক্রান্তদের জটিলতা কমাতে ডেঙ্গু রোগী ব্যবস্থাপনায় জোর দেয়ার পরামর্শ তাদের।

দেশের অধিকাংশ সরকারি হাসপাতালে লম্বা লাইনে ঘণ্টার পর ঘণ্টা দাঁড়িয়ে সেবা গ্রহণের প্রাণপণ চেষ্টা করছেন রোগী ও স্বজনরা। তীব্র শয্যা সংকট। বাধ্য হয়ে মেঝেতে চিকিৎসা। বাদ পড়েনি বেসরকারি হাসপাতালও। সংকট আছে সেখানেও। দেশে ক্রমবর্ধমানহারে ডেঙ্গু রোগী বাড়তে থাকায় বর্তমান পরিস্থিতি এক প্রকার নিয়ন্ত্রণের বাইরে। আক্রান্তের পাশাপাশি বাড়ছে মৃত্যুও।

এ নিয়ে সোহরাওয়ার্দী হাসপাতালের পরিচালক ডা. খলিলুর রহমান বলেন, ডেঙ্গুর উপসর্গ দেখা দিলে যত দ্রুত সম্ভব রোগীকে হাসপাতালে আনতে হবে। এতে তাঁদের মৃত্যু ঝুঁকি কমবে। আমরা দেখেছি যে, যারা দেরি করে হাসপাতালে আসে তাঁদের মৃত্যু হয়।

চলতি বছর সবচেয়ে ভয়ঙ্কর মাস জুলাই। জুনের তুলনায় মাসটিতে রোগী বেড়েছে সাত গুণ। মৃত্যু হয়েছে ২০৪ জনের, আক্রান্ত ৪৪ হাজার, যা ২০১৯ সালের ভয়াবহতাকেও হার মানিয়েছে। চিকিৎসকরা বলছেন, কিছু বুঝে ওঠার আগেই খারাপ হয়ে যাচ্ছে রোগীর পরিস্থিতি। তাই বেড়েছে মৃত্যু।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের অসংক্রামক ও সংক্রামক রোগ বিভাগের পরিচালক অধ্যাপক ডা. রোবেদ আমিন বলেন, গরমটা বেড়েছে, জলবায়ু পরিবর্তন হয়েছে; এসবের জন্যই কিন্তু আমরা এ দুর্যোগটা দেখলাম। ডেঙ্গুতে সবচেয়ে বেশি রোগীর মৃত্যু হয় ২০২২ সালে। সে বছর ৬১ হাজার রোগীর মধ্যে মারা যান ২৮১ জন। এবছর এখন পর্যন্ত মৃত্যু হয়েছে ২৫১ জনের।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো সংবাদ