• বুধবার, ১৭ জুলাই ২০২৪, ১০:১২ অপরাহ্ন
শিরোনাম
বেলকুচি উপজেলা আইন-শৃঙ্খলা কমিটির মাসিক সভা অনুষ্ঠিত শিক্ষার্থীদের শিক্ষা অর্জনের মাধ্যমে নিজকে গড়ে তুলে স্মার্ট বাংলাদেশ গঠনে ভুমিকা রাথতে হবে -বাবুল দাস কাপ্তাই জাতীয় উদ্যানে লজ্জাবতী বানর অবমুক্ত কাপ্তাই বিএসপিআই শিক্ষার্থীদের ওপর ফের হামলা, ৪ জন আহত এম কে বাঘাবাড়ী ঘি কোম্পানির উৎপাদনকারী মো: কামাল উদ্দিনের ১ বছরের কারাদণ্ড কোটা সংস্কারের দাবিতে  কাপ্তাই বিএসপিআই এ শিক্ষার্থীদের বিক্ষোভ মিছিল দিনেদুপুরে কৃষকের বাড়িতে হামলা লুটপাট রাঙামাটি সদর জোনের বিনামূল্যে চিকিৎসা সেবা ও ঔষধ প্রদান আলীকদম সেনা জোন কর্তৃক মানবিক সহায়তা প্রদান পানছড়ি মাদ্রাসায় অব্যবস্থাপনা ও অবৈধ নিয়োগ বাতিলের দাবিতে মানববন্ধন খাগড়াছড়িতে মাদকদ্রব্যের অপব্যবহার ও অবৈধ পাচারবিরোধী আন্তর্জাতিক দিবস উপলক্ষ্যে র‍্যালি ও আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত কাপ্তাইয়ে বঙ্গবন্ধু ও বঙ্গমাতা প্রাথমিক বিদ্যালয়  ফুটবল টুর্ণামেন্ট শুরু 

রাজবাড়ীতে অর্থের অভাবে বন্ধ হতে চলেছে বঙ্গমাতা বেগম ফজিলাত্তুন নেছা মুজিব অটিজম প্রতিবন্ধী স্কুল

সাইফুর রহমান পারভেজ, গোয়ালন্দ(রাজবাড়ী) প্রতিনিধি: / ১১০ জন পড়েছেন
প্রকাশিত : রবিবার, ১৮ জুন, ২০২৩

সাইফুর রহমান পারভেজ, রাজবাড়ীঃ 

রাজবাড়ীর জেলার কালুখালি উপজেলার বোয়ালিয়া ইউনিয়নে, ২০১৯ সালে ৩২ শতাংশ জমির উপর প্রতিষ্ঠিত হয়, বঙ্গমাতা বেগম ফজিলাত্তুন নেছা মুজিব অটিজম প্রতিবন্ধী স্কুল। স্কুলটি প্রতিষ্ঠা করেন তৎকালীন কালুখালি উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তা কামরুন্নাহার। এই স্কুলের বেশির ভাগ ছাত্র-ছাত্রীই শারীরিক ও মানুষিক প্রতিবন্ধী,বাক প্রতিবন্ধী, শ্রাবন ও দৃষ্টি প্রতিবন্ধী। একটি চারচালা টিনের ঘরের মধ্যে পাঠদানের জন্য একটিই ক্লাস রুম আছে। ২৩ জন ছাত্র ও ২৫জন ছাত্রী সহ মোট ৪৮ জন ছাত্রছাত্রী দিয়ে চলছে স্কুলটি। কিন্তু এই প্রতিবন্ধী স্কুলের ৪জন শিক্ষিকারা ও ১ জন অফিস সহকারী সহ মোট ৫ জন বেতন ভাতা সহ নানা ধরনের সুবিধা থেকে বঞ্চিত ৫ বছর যাবত। এমন অবস্থায় স্কুল ছেড়ে দিতে চাইছেন শিক্ষিকারা। ফলে বন্ধ হতে বসেছে স্কুলটি। অনিশ্চিত ভবিষ্যতে দিকে ৪৮ জন প্রতিবন্ধী শিক্ষার্থীর জীবন। হতাশ প্রতিবন্ধী ছাত্র-ছাত্রীদের অভিভাবকরা।

এছাড়াও স্কুলের নানাবিধ সমস্যা তো রয়েছেই,রুম/শ্রেনী কক্ষের সমস্যা। কারন ৪৮ জন প্রতিবন্ধী শিক্ষার্থীর জন্য একটি রুম দিয়ে শিক্ষা কার্যক্রম চালানো খুবই কঠিন। ক্লাস রুমের মধ্যে নেই ক্লাস নেওয়ার পরিবেশ। ক্লাস রুমের দেওয়ালে বিভিন্ন ধরনের আলপনা আকাঁ থাকা দরকার। যেমন অ,আ,ক,খ অক্ষর গুলো লেখা থাকা। জাতীয় ফলের নাম,জাতীয় পতাকার ছবি,বিভিন্ন শিক্ষামুলক ছবি দেওয়ালে আকাঁ থাকা দরকার। এছাড়াও ক্লাস রুমে নেই কোন সিলিং এর ব্যবস্থা,যার অভাবে বাচ্চারা ঠান্ডা/ গরমে জ্বর সহ নানাবিধ রোগে আক্রান্ত হচ্ছে প্রতিনিয়তই। প্রতিবন্দী বাচ্চাদের যাতায়াত ব্যবস্থা নিশ্চিত করার প্রয়োজন কয়েটি স্কুল ভ্যান। করণ উপজেলার প্রত্যন্ত এলাকার প্রতিবন্ধী বাচ্চারা এই স্কুলে আছে, তাদের স্কুলে পৌছাতে আর্থিক সংকট থাকায় ব্যাপক পরিমান কষ্ট হচ্ছে অভিভাবকদের।

এবিষয়ে প্রধান শিক্ষিকা হিরা আক্তার জানান,
টাকার অভাবে স্কুলটিতে প্রতিদিন ক্লাস নেওয়া সম্ভব হচ্ছে না। সপ্তাহে ৩ দিন চলছে ক্লাস। টাকার ব্যবস্থা হলে সপ্তাহে অন্তত ৫ দিন চলবে স্কুলটি। এছাড়া টাকা অভাবে মানবেতর জীবনযাপন শুধু করছে স্কুলের শিক্ষিকারা। এখনই সমস্যা সমাধান করা দরকার। তা না হলে যেকোন সময় বন্ধ হতে পারে এই স্কুলটি।

অন্য দিকে কালুখালি উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তার মোঃ সজিব জানালেন ভিন্ন কথা। খুব তারাতাড়ি সমাধান করা হয়ে এই স্কুলটির যাবতীয় সমস্যা। তিনি বলেন এই স্কুলের জায়গাটি মামালা থাকায় সরকারী সুবিধা বঞ্চিত হচ্ছে শিক্ষিকা ও ছাত্র- ছাত্রীরা। আমার ব্যক্তি উদ্দেগে ছাত্র-ছাত্রীদের জন্য নাস্তার ব্যবস্থা করেছি। আশা করছি। শিক্ষকদের ব্যবস্থা দাও তাড়াতাড়ি হবে না।

পার্বত্যকন্ঠ নিউজ/এমএস


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো সংবাদ