• মঙ্গলবার, ২১ মে ২০২৪, ০৫:০৭ অপরাহ্ন
শিরোনাম
রামগড়ে ইয়াবা ও গাঁজাসহ দুই মাদক ব্যবসায়ী আটক কাপ্তাইয়ে ষাটোর্ধ্ব অসুস্থ পিতা পুত্রের কোলে চড়ে ভোট দিতে  রাজস্থলী উপজেলায় সুষ্ঠুভাবে ভোট গ্রহণ চলছে   কাপ্তাইয়ে ভোট কেন্দ্র পরিদর্শনে রাঙামাটি জেলা প্রশাসক অত্যন্ত সুন্দর ও সুষ্ঠু পরিবেশে ভোটগ্রহণ চলছে- রাঙামাটি জেলা প্রশাসক বান্দরবানের লামায় শান্তিপূর্ণভাবে চলছে ভোট গ্রহণ, উপস্থিতি কম চলছে কাপ্তাই উপজেলা পরিষদ নির্বাচন রাত পোহালে খাগড়াছড়ি সদরসহ তিন উপজেলায় নির্বাচন রাজস্থলী উপজেলার ভোট কেন্দ্রে কেন্দ্রে পৌঁছানো হচ্ছে নির্বাচনী সরঞ্জাম মানিকছড়িতে নবনির্বাচিত জনপ্রতিনিধি’র সংবর্ধনা ও যুব রেড ক্রিসেন্ট ইউনিটের পরিচিত সভা রাত পোহালে কাপ্তাই উপজেলা পরিষদ নির্বাচন: কেন্দ্রে কেন্দ্রে পৌঁছানে হলো নির্বাচনী সরঞ্জাম  সাজেকে বার্ষিক ক্রীড়া পুরুস্কার বিতরণ করেছে সেনাবাহিনী

লামার মেরাখোলা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় শ্রেণিকক্ষ ৯টি, শিক্ষক ৪ জন !

মোহাম্মদ রফিকুল ইসলাম, নিজস্ব সংবাদদাতা, লামা / ১৯৬ জন পড়েছেন
প্রকাশিত : মঙ্গলবার, ৮ নভেম্বর, ২০২২

শুধুমাত্র শিক্ষক সংকটে একটি বিদ্যালয়ের লেখাপড়া ধ্বংসের পথে। যার উজ্জ্বল দৃষ্টান্ত লামা উপজেলার সদর ইউনিয়নের “মোরখোলা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়”। সব থাকলেও শিক্ষক সংকটে পাঠদান ব্যাহত হচ্ছে। মাত্র ৪ জন শিক্ষক দিয়ে চলছে বিদ্যালয়ের প্রাক-প্রাথমিক থেকে অষ্টম শ্রেণী পর্যন্ত ৯টি শ্রেণিকক্ষের ৫৩২ জন শিক্ষার্থীর পড়ালেখা। বিদ্যালয়ে অবকাঠামোগত সমস্যা না থাকলেও শিক্ষক স্বল্পতার কারণে গুণগত ও মানসম্মত শিক্ষাদান করা সম্ভব হয়ে উঠছে না বলে জানান বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আশীষ কুমার দত্ত।

জানা যায়, লামা ইউনিয়ন সদরের প্রাণকেন্দ্রে মনোরম পরিবেশে ১৯৬৫ সালে বিদ্যালয়টি স্থাপিত হয়। বিদ্যালয়টি গুণগত ও মানসম্মত পাঠদানের কারণে বিগত সময়ে উপজেলার প্রথম সারির একটি বিদ্যালয় হিসাবে পরিচিত ছিল। যার দরুন ২০১৩ সালে প্রণীত জাতীয় শিক্ষানীতিতে প্রাথমিক শিক্ষার মেয়াদ ৫ বছর থেকে বাড়িয়ে ৮ বছর করার প্রস্তাবের অংশ হিসাবে এই বিদ্যালয়টিকে ৮ম শ্রেণি পর্যন্ত উত্তীর্ণ করা হয়। স্কুলটি শ্রেণিকক্ষ বাড়ানো হলেও অবকাঠামো, শিক্ষক ও শিক্ষা উপকরণ বর্ধিত করা হয়নি।

স্কুলের প্রধান শিক্ষক আশীষ কুমার দত্ত জানান, পরিচালনা পর্ষদ, শিক্ষক মণ্ডলী ও অভিভাবকদের আন্তরিকতার কারণে অত্র বিদ্যালয়ের লেখাপড়ার মান ভাল। ৯টি শ্রেণিকক্ষে ৫ শতাধিক শিক্ষার্থীর বিদ্যালয়ে নিয়মিত ক্লাস করে। এ বছর পিএসসি পরীক্ষায় শতভাগ উত্তীর্ণ হয়েছে। বিদ্যালয়ে ৭ জন শিক্ষক নিয়োগপ্রাপ্ত রয়েছেন। এরমধ্যে ৩ জনেই মাতৃত্বকালীন ছুঁটিতে রয়েছেন। বর্তমানে মাত্র ৪ জন শিক্ষক দিয়ে পাঠদান করতে আমাদের খুব কষ্ট হয়। ৪ জন শিক্ষকের পক্ষে ৫ শতাধিক শিক্ষার্থীকে পাঠদান করানো কষ্টসাধ্য। আমরা বিষয়টি কর্তৃপক্ষকে জানিয়েছি, কোন কাজ হয়নি।’

অভিভাবকরা বলেন, উপজেলার অনেক স্কুলে ৬টি শ্রেণিকক্ষের জন্য ১০/১২ জন শিক্ষক দায়িত্বে রয়েছেন। অথচ মেরাখোলা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ৪ জন শিক্ষক দিয়ে এখন পাঠদান করানো হচ্ছে। শিক্ষকের অভাবে ভালো স্কুলটি খারাপ হয়ে যাচ্ছে। স্কুলের নব-নির্বাচিত সভাপতি ও ইউপি চেয়ারম্যান মিন্টু কুমার সেন বলেন, নতুন শিক্ষক বাড়ানোর বিষয়ে উপজেলা চেয়ারম্যান, ইউএনও ও শিক্ষা অফিসারকে অবগত করা হবে।

এ ব্যাপারে উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার তপন কুমার চৌধুরী জানান, ‘পুরো উপজেলার অনেক স্কুলে আমাদের শিক্ষক স্বল্পতা রয়েছে। শিগগিরই ওই স্কুলের শিক্ষক ঘাটতি পূরণ করা হবে।’

এম/এস


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো সংবাদ