শনিবার, ০৪ ফেব্রুয়ারী ২০২৩, ০৮:২৩ পূর্বাহ্ন
বিজ্ঞপ্তিঃ

হ্যাঁ, এলাকা আমার, খবর আমার, পত্রিকা আমার। সাফল্যের ২ বছর শেষে ৩ তম বছরে দৈনিক পার্বত্য কন্ঠ। নতুন বাংলাদেশ গড়ার প্রত্যয়ে সবচেয়ে বেশি স্থানীয় সংস্করন নিয়ে "দৈনিক পার্বত্য কন্ঠ" বিশ্লেষন আমাদের, সিদ্ধান্ত আপনার। দৈনিক পার্বত্য কন্ঠ পত্রিকায় শুন্য পদে সংবাদদাতা নিয়োগ চলছে। আপনার এলাকায় শুন্য পদ রয়েছে কিনা জানতে কল করুনঃ 01647627526 অথবা ইনবক্স করুন আমাদের পেইজে। ভিজিট করুনঃ parbattakantho.com দৈনিক পার্বত্য কন্ঠ। সত্য প্রকাশে সাহসী যোদ্ধা আমরা নতুন বাংলাদেশ গড়বো

ফরিদপুরে ক্লিনিক কর্তৃপক্ষের বিচারের দাবিতে মানববন্ধন

কামরুল হাসান জুয়েল, ফরিদপুর থেকে:
  • প্রকাশিত : বৃহস্পতিবার, ২০ জানুয়ারী, ২০২২
  • ১৯১ জন পড়েছেন

ফরিদপুরে আল মদিনা প্রাইভেট হাসপাতালে এক নবজাতকের কপাল কেটে ফেলা ও আরামবাগ হাসপাতালে আরেক নবজাতকের হাতের হাড় ভেঙে ফেলার ঘটনায় জড়িতদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবিতে মানববন্ধন করা হয়েছে।
বৃহস্পতিবার (২০ জানুয়ারি) সকাল ১০টা হতে প্রায় ঘণ্টাব্যাপী এ মানববন্ধনে ভুক্তভোগী পরিবারের সদস্যদের সাথে ফরিদপুরের সাধারণ শ্রেণি-পেশার মানুষ অংশ নেন।মানববন্ধনে কপাল কেটে ফেলা নবজাতকের ফুফু হোসনে আরা কান্নাজড়িত কণ্ঠে বলেন, ‘এ কেমন দেশ যেখানে মায়ের গর্ভে সন্তান নিরাপদ নয়, হাসপাতালে রোগীর নিরাপত্তা নেই? গত পাঁচ-ছয় দিন আমরা যে কিভাবে কাটিয়েছি তা একমাত্র আল্লাহই ভালো জানেন। আমাদের খাওয়া-দাওয়া, ঘুম সবকিছু হারাম হয়ে গেছে।’ তিনি এ ঘটনায় জড়িতদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবি করেন।

এ সময় অন্যদের মধ্যে ভুক্তভোগী নবজাতকের বাবা শফি খান, নবজাতকের দাদা রব খান, হাড় ভেঙে যাওয়া নবজাতকের বাবা আরিফুল আলম সজল, দাদি মুক্তি বেগমসহ ফরিদপুর প্রেস ক্লাবের সাধারণ সম্পাদক মাহবুব পিকুল, সচেতন নাগরিক কমিটির সভাপতি অ্যাডভোকেট শিপ্রা গোস্বামী, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী মোস্তফা আমীর ফয়সল, আবরার হোসেন ইতু, তাহিয়াতুল জান্নাত, রুমন চৌধুরী প্রমুখ বক্তব্য দেন।তারা এসব ঘটনায় জড়িতদের শাস্তি দাবি করেন এবং এসব প্রাইভেট হাসপাতাল ও ডায়াগনস্টিক সেন্টারগুলোর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়ার দাবি জানান।
বক্তারা বলেন, আয়া দিয়ে সিজারিয়ান অপারেশন করানোর সাজা কি হতে পারে? সেবার নামে এখানে রমরমা চিকিৎসাবাণিজ্য হচ্ছে। তারা বলেন, এসব প্রাইভেট হাসপাতালে সরকারি চিকিৎসকরাই রোগী দেখেন যারা সরকারি হাসপাতালে রোগীকে সময় দিতে পারেন না। কিন্তু প্রাইভেট হাসপাতালে দিনের বেশিরভাগ সময় দেন। রোগীদের বিভিন্ন টেস্টের নামে অযাচিত বাণিজ্য করা হয়। তাদের দালালেরা সরকারি হাসপাতালের রোগী ভাগিয়ে নেন। এসব ব্যাপারে ব্যবস্থা নিতে তারা জোর দাবি করেন।
তারা এসব ঘটনায় জড়িতদের শাস্তি দাবি করেন এবং এসব প্রাইভেট হাসপাতাল ও ডায়াগনস্টিক সেন্টারগুলোর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়ার দাবি জানান।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো সংবাদ
এই পোর্টালের কোনো খেলা বা ছবি ব্যাবহার দন্ডনীয় অপরাধ।
কারিগরি সহযোগিতায়: ইন্টাঃ আইটি বাজার
iitbazar.com