শনিবার, ১০ ডিসেম্বর ২০২২, ০৪:০৮ পূর্বাহ্ন
বিজ্ঞপ্তিঃ

হ্যাঁ, এলাকা আমার, খবর আমার, পত্রিকা আমার। সাফল্যের ২ বছর শেষে ৩ তম বছরে দৈনিক পার্বত্য কন্ঠ। নতুন বাংলাদেশ গড়ার প্রত্যয়ে সবচেয়ে বেশি স্থানীয় সংস্করন নিয়ে "দৈনিক পার্বত্য কন্ঠ" বিশ্লেষন আমাদের, সিদ্ধান্ত আপনার। দৈনিক পার্বত্য কন্ঠ পত্রিকায় শুন্য পদে সংবাদদাতা নিয়োগ চলছে। আপনার এলাকায় শুন্য পদ রয়েছে কিনা জানতে কল করুনঃ 01647627526 অথবা ইনবক্স করুন আমাদের পেইজে। ভিজিট করুনঃ parbattakantho.com দৈনিক পার্বত্য কন্ঠ। সত্য প্রকাশে সাহসী যোদ্ধা আমরা নতুন বাংলাদেশ গড়বো

রাবি অধ্যাপককে প্রাণনাশের হুমকির সত্যতা মেলেনি

অলিউল্লাহ রাজশাহীঃ
  • প্রকাশিত : শুক্রবার, ৬ আগস্ট, ২০২১
  • ২৪৩ জন পড়েছেন

নাটোর-২ আসনের সংসদ সদস্য শফিকুল ইসলাম শিমুলের হয়ে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের বাংলা বিভাগের সভাপতি অধ্যাপক ড. সরকার সুজিত কুমারকে প্রাণনাশের হুমকির সত্যতা মেলেনি।

ওই অধ্যাপকের সাধারণ ডায়েরির তদন্ত শেষে এ তথ্য জানান নগরীর বোয়ালিয়া মডেল থানা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) নিবারন চন্দ্র বর্মন।

মোবাইল ফোনে হুমকির প্রেক্ষিতে নিজের এবং পরিবারের নিরাপত্তা চেয়ে গত ২৯ জুলাই বোয়ালিয়া মডেল থানায় সাধারণ ডায়েরি করেন অধ্যাপক ড. সরকার সুজিত কুমার।

মুক্তিযোদ্ধা ও গবেষক ড. সরকার সুজিত কুমার পরিবার নিয়ে রাজশাহী নগরীর কুমারপাড়া এলাকায় বসবাস করেন। অভিযোগ পাবার পর থেকেই তার সঙ্গে সার্বক্ষণিক যোগাযোগ রাখছিল বোয়ালিয়া থানা পুলিশ। সেই সঙ্গে চলছিল জিডির তদন্ত।

ওসি নিবারন চন্দ্র বর্মন ঢাকা পোস্টকে বলেন, জিডির তদন্তে পুলিশ তথ্য প্রযুক্তির সহায়তা নিয়েছে। অধ্যাপক ড. সরকার সুজিত কুমার তার মোবাইলে একটি নম্বর থেকে ফোন দিয়ে হুমকি দেওয়ার অভিযাগ এনেছেন।

আমরা তদন্ত করে দেখেছি, ওই দিন এবং ওই সময় সেই নম্বরটি থেকে তার ফোনে কোনো কলই আসেনি। এমনকি অন্য কোনো অপরিচিত নম্বর থেকেও কল আসেনি।

তথ্য প্রযুক্তির সহায়তা নিয়ে আমরা এটি নিশ্চিত হয়েছি। তাছাড়া ওই অধ্যাপক তার অভিযোগের কোনো সাক্ষ্য-প্রমাণ দিতে পারেননি পুলিশের কাছে। সেই অর্থে তার অভিযোগটি খারিজ হয়ে গেছে।

থানায় দাখিল করা জিডিতে অধ্যাপক ড. সরকার সুজিত কুমার উল্লেখ্য করেন, মহান মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক তার রচিত চারটি গ্রন্থের মধ্যে একটি ‘নাটোর জেলার ইতিহাস এতিহ্য ও মুক্তিযুদ্ধ’ অন্যতম।

২০০৮ সালে এ গ্রন্থটি প্রকাশ করা হয়। পরের বছর ২০১০ সালে গ্রন্থটি প্রথম সংস্করণ প্রকাশ পায়। এরপর ২০২১ সালের বই মেলায় প্রকাশ পায় দ্বিতীয় সংস্করণ।

প্রথম গ্রন্থ প্রকাশের ৩১০ পৃষ্ঠায়, প্রথম সংস্করণের ৩৬১ পৃষ্ঠায় এবং দ্বিতীয় সংস্করণের ৬০০ পৃষ্ঠায় রাজাকার হাসান আলীর নাম মুদ্রিত হয়েছে।

এই অধ্যাপকের দাবি, মুক্তিযোদ্ধা, শহীদ ও স্বাধীনতাবিরোধীদের নাম মাঠপর্যায়ে ৩ বছর যোগাযোগ করে নাটোর জেলার গ্রামগঞ্জে ঘুরে মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ে সাক্ষাৎকার নিয়ে ছবি তুলে তথ্য সন্নিবেশিত করেছেন তিনি। একাধিক সাক্ষাৎকারদাতা নাটোর কান্দিভিটার (পুরাতন কোর্টপাড়া) হাসান আলী একাত্তরের মুক্তিযুদ্ধের সময় একজন ‘কুখ্যাত রাজাকার’ ছিল বলে তথ্য দিয়েছেন।

গত ১ আগস্ট ড. সরকার সুজিত কুমার ঢাকা পোস্টকে জানিয়েছিলেন, রাজাকার হাসান আলী সংসদ সদস্য শফিকুল ইসলাম শিমুলের পিতা, এটি তিনি জানতেন না। কিন্তু বর্তমানে নাটোর জেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগ গঠন নিয়ে নিজেদের মধ্যে মতবিরোধ সৃষ্টি হলে বইটি আলোচনায় আসে। এরপর এমপি শিমুলের পক্ষ নিয়ে ইতোমধ্যেই আমাকে কিছু অপরিচিত সন্ত্রাসী জীবননাশের বারবার হুমকি দিয়ে যাচ্ছেন।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো সংবাদ
এই পোর্টালের কোনো খেলা বা ছবি ব্যাবহার দন্ডনীয় অপরাধ।
কারিগরি সহযোগিতায়: ইন্টাঃ আইটি বাজার
iitbazar.com