শনিবার, ১০ ডিসেম্বর ২০২২, ১১:৫৬ পূর্বাহ্ন
বিজ্ঞপ্তিঃ

হ্যাঁ, এলাকা আমার, খবর আমার, পত্রিকা আমার। সাফল্যের ২ বছর শেষে ৩ তম বছরে দৈনিক পার্বত্য কন্ঠ। নতুন বাংলাদেশ গড়ার প্রত্যয়ে সবচেয়ে বেশি স্থানীয় সংস্করন নিয়ে "দৈনিক পার্বত্য কন্ঠ" বিশ্লেষন আমাদের, সিদ্ধান্ত আপনার। দৈনিক পার্বত্য কন্ঠ পত্রিকায় শুন্য পদে সংবাদদাতা নিয়োগ চলছে। আপনার এলাকায় শুন্য পদ রয়েছে কিনা জানতে কল করুনঃ 01647627526 অথবা ইনবক্স করুন আমাদের পেইজে। ভিজিট করুনঃ parbattakantho.com দৈনিক পার্বত্য কন্ঠ। সত্য প্রকাশে সাহসী যোদ্ধা আমরা নতুন বাংলাদেশ গড়বো

“স্বাস্থ্য ঝুঁকি নিয়ে চলছে তামাক চাষ”

কাপ্তাই প্রতিবেদক
  • প্রকাশিত : শনিবার, ২০ ফেব্রুয়ারী, ২০২১
  • ২৫৯ জন পড়েছেন

রাঙ্গামাটি জেলার বরকল,লংগদু,বাঘাইছড়ি,জুরাইছড়িসহ বিভিন্ন উপজেলাতে স্বাস্থ্য ঝুঁকি নিয়েই ব্যাপক হারে বেড়েছে তামাকচাষ। এরমধ্যে বরকল উপজেলার প্রায় ৬৫ ভাগ আবাদী জমিতে তামাকের আবাদ হয়েছে।

বিগত বছর গুলোতে তামাক চাষে তেমন লাভবান হলেও বিকল্প কোন চাষ সম্পর্কে পর্যাপ্ত প্রশিক্ষণ ও যোগান না থাকায় এবং কৃষি অধিদপ্তরের মাঠ পর্যায়ের কর্মকর্তা কর্মচারীদের উদাসীনতায় উৎসাহিত হয়েছে তামাক চাষীরা।

স্থানীয়দের সাথে কথা বলে জানা গেছে, উৎপাদন খরচ বাদ দিয়েও তামাক চাষীরা বিঘা প্রতি ৮০ হাজার থেকে ১ লাখ টাকা পর্যন্ত পেয়ে থাকে।

এ সুযোগে তামাক উৎপাদনে সংশ্লিষ্ট কোম্পানিগুলো কৃষকের মাঠ দাপিয়ে বেড়াচ্ছে।
অন্যদিকে, খাদ্যশষ্য উৎপাদনের জমি তামাক চাষের কাজে অধিক হারে ব্যবহৃত হওয়ায় এবার বোরো চাষ কমে যাচ্ছে।
এতে রুপের রানী রাঙ্গামাটির প্রাকৃতিক রুপের স্বীকৃতি ধীরে ধীরে হারাতে বসেছে। ফলে মারাত্মক ভাবে পরিবেশ সংকটের আশঙ্কা করা হচ্ছে।

তবে বিশেষজ্ঞরা মনে করছেন, স্বাভাবিক নিয়মের দ্বিগুণ হারে এ জেলায় আবাদি জমির পরিমাণ কমছে। এর প্রধান কারণ অস্বাভাবিক ভাবে নতুন করে গড়ে উঠা ইটভাটা,জুমচাষ ও তামাক চাষে ঝুঁকে পড়া। উপজেলায় খাদ্যশষ্য উৎপাদনের জমি অধিকহারে তামাক চাষে ব্যবহৃত হচ্ছে। এবার অন্যান্য ফসলের আবাদ তুলনামূলক কম হওয়ায় রাঙ্গামাটির এসব উপজেলায় খাদ্য উৎপাদন কম হবে বলে ধারণা করা হচ্ছে।তামাক পক্রিয়াজাত করার জন্য প্রতি বছর ব্যাপক হারে বৃক্ষ নিধন করছেন চাষীরা।যার প্রভাব সরাসরি পরিবেশের ওপড় পড়ছে।

সংশ্লিষ্ট কৃষি আফিস সূত্রে জানা গেছে, এ বছর রাঙ্গামাটির এসব অঞ্চলে আবুল খায়ের টোব্যাকো কোম্পানি , ঢাকা টোব্যাকোএবং ব্রিটিশ আমেরিকান টোব্যাকো কোম্পানির পৃষ্ঠপোষকতায় (কমবেশী)তামাক চাষ করা হয়েছে।

এ বিষয়ে ইউপি চেয়ারম্যান মো মামুনর রশীদ মামুন
জানান, সবচেয়ে ভয়াবহ অবস্থা বরকল উপজেলায়। এই উপজেলায় আবাদি জমির বেশির ভাগ অংশের জমিতে তামাকের আবাদ হচ্ছে। এখানকার জমির বর্গামূল্য এমনই যে শুধুমাত্র তামাক চাষকালীন সময়ে (সাড়ে ৪ মাসের জন্য) ১ বিঘা জমিতে ৮ থেকে ১৫ হাজার টাকায় লিজ দেয়া হয়।

স্থানীয় সচেতন মহলদের আরো কিছু ব্যাক্তি জানান, এভাবে যদি কৃষি বিভাগ উদাসীনতা দেখায় তাহলে সাধারণ চাষিদের তামাক চাষ করা ছাড়া আর উপায় কি? গাংনী কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের কর্মকর্তা কর্মচারীদের গাফিলতি, প্রশিক্ষণে স্বজনপ্রীতি, সরকারী প্রণোদনা তালিকা করায় গড়িমসি, আধুনিক যন্ত্রপাতি বিতরণে অনিয়ম, কর্তব্য অবহেলার কারণে এবার তামাকের চাষে ঝুঁকে পড়ছে এ এলাকার কৃষকরা।

তামাক চাষী বরকল উপজেলার এরাবুনিয়া গ্রামের মো রহিম ও এমদাদুল হক মিলন এবং আসাদুজ্জামান জানান, বিঘা প্রতি জমিতে তামাক চাষে বীজ, সার, কীটনাশক ও পরিচর্যাসহ মোট ব্যয় হয় ২০ থেকে ২৫ হাজার টাকা যা তামাক উৎপাদনকারী কোম্পানিগুলো সহজ শর্তে সম্পূর্ণ বহন করে। একারণে সাধারণ চাষীরা তামাক চাষে আসক্ত হয়ে পড়েছে।

বরকল উপজেলা মাঠ পর্যায়ের সহকারী কৃষি কর্মকর্তা অনুপ দত্ত জানান, তামাক চাষে জমির উর্বরতা কমে যায়। এমন একটা সময় আসবে যখন তামাক চাষের ফলে উপজেলায় আর কোন ফসলের চাষ করা সম্ভব হবেনা।

তারপরেও বর্তমানে ধানের বাজার মূল্য বেশী হওয়ায় চাষীরা বোরো চাষে এগিয়ে আসছে। পাশাপাশি ইতোমধ্যেই অনেক চাষী সবজি চাষে লাভবান হওয়ায় আগ্রহ বাড়ছে। এক সময় এ অঞ্চলে তামাক চাষ কমে আসবে।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো সংবাদ
এই পোর্টালের কোনো খেলা বা ছবি ব্যাবহার দন্ডনীয় অপরাধ।
কারিগরি সহযোগিতায়: ইন্টাঃ আইটি বাজার
iitbazar.com