বৃহস্পতিবার, ১৮ অগাস্ট ২০২২, ০৫:২৩ পূর্বাহ্ন
বিজ্ঞপ্তিঃ

হ্যাঁ, এলাকা আমার, খবর আমার, পত্রিকা আমার। সাফল্যের ২ বছর শেষে ৩ তম বছরে দৈনিক পার্বত্য কন্ঠ। নতুন বাংলাদেশ গড়ার প্রত্যয়ে সবচেয়ে বেশি স্থানীয় সংস্করন নিয়ে "দৈনিক পার্বত্য কন্ঠ" বিশ্লেষন আমাদের, সিদ্ধান্ত আপনার। দৈনিক পার্বত্য কন্ঠ পত্রিকায় শুন্য পদে সংবাদদাতা নিয়োগ চলছে। আপনার এলাকায় শুন্য পদ রয়েছে কিনা জানতে কল করুনঃ 01647627526 অথবা ইনবক্স করুন আমাদের পেইজে। ভিজিট করুনঃ parbattakantho.com দৈনিক পার্বত্য কন্ঠ। সত্য প্রকাশে সাহসী যোদ্ধা আমরা নতুন বাংলাদেশ গড়বো

মাটিরাঙ্গায় চরপাড়াবাসীর দুঃখ-দুর্দশা দেখার কেউ নাই

অন্তর মাহমুদ, মাটিরাঙ্গা প্রতিনিধি: 
  • প্রকাশিত : মঙ্গলবার, ২২ সেপ্টেম্বর, ২০২০
  • ২৫৬ জন পড়েছেন

খাগড়াছড়ি জেলার মাটিরাঙ্গা পৌরসভাধীন চরপাড়াবাসীর দুঃখ-দূর্দশা দেখার যেনো কেউ নেই । উপজেলা সদরের নিকটবর্তী  ওয়ার্ড হওয়া সত্বেও রাস্তার বেহাল দশার কারণে দীর্ঘদিন যাবৎ চরপাড়াবাসী সড়ক পথে যাতায়াতের সময় দূর্ভোগের শিকার হচ্ছেন। প্রতি বছর ধলিয়া খালের  পানির প্রবল চাপে চরপাড়া যাতায়াতের রাস্তাটি যেভাবে ভেঙ্গে যাচ্ছে তাতে যে কোন সময় চরপাড়ার সাথে মাটিরাঙ্গা সদরের সড়ক যোগাযোগ ব্যবস্থা বিচ্ছিন্ন হয়ে যাওয়ার আশংখা রয়েছে। বর্তমানে ৪টি স্থানে বড় ধরনের ভাঙ্গনের ফলে ক্ষত-বিক্ষত অবস্থায় রয়েছে রাস্তাটি।
দ্রুত সময়ের মধ্যে স্থায়ীভাবে সংস্কারের উদ্যোগ গ্রহন করার দাবী জানিয়ে স্থানীয়রা বলেন, ধলিয়া খালের করাল থাবায় চরপাড়া রাস্তাটি ভেঙ্গে প্রতিবছর ধলিয়া খালের গর্ভে বিলীন হয়ে যাচ্ছে। মাটিরাঙ্গায় যাতায়াতে করতে পারছেন না নিজেরা ঠিক সময়মতো। ছেলে মেয়েরা স্কুল কলেজে যেতে পারে না যথাসময়ে । জমির উৎপাদিত ফল-ফলাদি বিক্রির জন্য বাজারে নিতে হয় মাথায় বহন করে। অসুস্থ্য রোগীকে হাসপাতালে নেয়ার কোন সুব্যবস্থা নাই বলে মুমূর্ষ রোগী নিয়ে বিভিন্ন সময় সংকটাপন্ন অবস্থায় পড়তে হয়েছে।
এ বিষয়ে পৌর সংরক্ষিত আসনের মহিলা কাউন্সিলর মনোয়ারা বেগম রাস্তার দুর্বস্থার বিষয়টি স্বীকার করে বলেন, বর্তমানে রাস্তাটির অচলাবস্তার উন্নয়নে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নেয়া প্রয়োজন।
এ বিষয়ে স্থানীয় কাউন্সিলর মোঃ আলী মিয়া জানান, রাস্তার ভাঙ্গনের বিষয়ে প্রকল্প আকারেপ্রয়োজনীয় উদ্যোগ গ্রহনের নির্মিত্তে পৌরসভা সহ বিভিন্ন দপ্তরে একাধিকবার আবেদন করেছি। এছাড়াও মাটিরাঙ্গা উপজেলা নির্বাহী অফিসার বিভীষণ কান্তি দাশ‘র সহায়তায় পানি উন্নয়ন বোর্ড এর নিকটও আবেদন পাঠানো হয়েছিল। তবে আবেদন পত্র দিলেও অদ্যবদি ভাঙ্গনরোধে কোন উন্নয়ন কাজ হয়নি। প্রত্যাশা করছি অচিরেই চরপাড়া মানুষের ভাগ্য পরিবর্তনের জন্য সরকারী কর্তৃপক্ষ সু-নজর দেবেন।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এ জাতীয় আরো সংবাদ
এই পোর্টালের কোনো খেলা বা ছবি ব্যাবহার দন্ডনীয় অপরাধ।
কারিগরি সহযোগিতায়: ইন্টাঃ আইটি বাজার
iitbazar.com