• শনিবার, ১৩ এপ্রিল ২০২৪, ১২:১৬ অপরাহ্ন

পার্বত্যাঞ্চলে আধুনিকতার ছোয়ায় বিলুপ্তির পথে ছনের ঘর

রিপন সরকার,স্টাফ রির্পোটার খাগড়াছড়ি: / ১৮০৮ জন পড়েছেন
প্রকাশিত : বুধবার, ৭ সেপ্টেম্বর, ২০২২

একসময় খাগড়াছড়ি পার্বত্যাঞ্চলের গ্রামেগঞ্জে দেখা মিলতো ছনের ঘর বা কুঁড়েঘর। বাঁশ, চাটাই, ছন দিয়ে তৈরি করা হতো এ ঘর। এ ঘর গরমে যেমন ঠান্ডা তেমনি শীতকালে গরম। এ বৈশিষ্ট্যের কারণে ‘গরিবের এসি’ হিসেবেও পরিচিত এটি। আধুনিকতার ছোঁয়ায় এগুলো এখন বিলুপ্তপ্রায়।

জেলার গ্রামগঞ্জ ঘুরে দেখা যায়, আধুনিকতার ছোঁয়া লেগেছে সব জায়গায়। প্রত্যন্ত গ্রামেও এখন বিদ্যুতের আলোয় আলোকিত। কোথাও ছনের ঘরের অস্তিত্ব নেই। একসময় যেখানে দেখা মিলতো অসংখ্য ছনের ঘর, এখন সেখানেই গড়ে উঠেছে টিনের ঘর ও আধাপাকা দালান। আরামদায়ক এ ঘরে দরিদ্র মানুষের পাশাপাশি বিত্তবানরাও পরিবার-পরিজন নিয়ে বসবাস করতেন। মানুষের বসবাসের পাশাপাশি তৈরি করা হতো রান্নাঘর, গোয়ালঘর ও ঢেঁকিঘর। এখন এ ঘরের পরিবর্তে নির্মাণ করা হচ্ছে টিন বা ইটের তৈরি পাকা দালান।
মোঃ ওসমান মুন্সি বয়স প্রায় সত্তর ছুঁই ছুঁই একসময় ছনের ঘরের কারিগর ছিলেন তিনি। কিন্তু বয়স বেড়ে যাওয়ায় এখন আর কাজ করতে পারেন না। তিনি বলেন, ‘একসময় পাহাড়ঞ্চলে প্রচুর ছনের আবাদ হতো। এসব ছন কেটে বাঁশ, চাটাইয়ের মাধ্যমে খুবই কম খরচে তৈরি করা হতো এ ঘর। শুধু থাকার জায়গা নয়; রান্নাঘর, ঢেঁকিঘরেও ব্যবহার করা হতো ছন। কিন্তু বর্তমানে যেসব স্থানে ছনের আবাদ করা হতো এখন সেসব জায়গায় শস্য আবাদ ও বাগ বাগিছা করা হচ্ছে। কালের পরিক্রমায় এসব ঘর হারিয়ে গেছে।

মহালছড়ি উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি সদর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান রতন কুমার শীল বলেন, ‘মানুষের জীবনযাত্রার অনেক উন্নতি হয়েছে। এখন গরিব মানুষের বাড়িতেও টিনের ঘর, আধাপাকা বিল্ডিং। ছনের ঘর এখন দেখাই যায় না।’
কথা হয় খাগড়াছড়ি সদর উপজেলার ২ নং গোলাবাড়ী ইউপি চেয়ারম্যান উল্ল্যাস ত্রিপুরার সাথে। তিনি বলেন, ‘ছনের ঘর বা কুঁড়েঘর ছিল গ্রামীণ ঐতিহ্য। এখন এ ধরনের ঘর তেমন চোখে পড়েনা। সদর উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান আক্তার হোসেন বলেন ছনের ঘর শীতকালে যেমন ছিল গরম তেমনি গরমে ছিল ঠান্ডা। তবে ছন এখন আর দেখছিনা। পানছড়ি উপজেলার উল্টাছড়ি ইউনিয়নের আওয়ামীলীগের সাবেক সাধারন সম্পাদক ও ইউসিসি চেয়ারম্যান ডাঃ বিজয় চন্দ্র সরকার বলেন আগে খুবই স্বল্প খরচে বাঁশ, ছন এবং পাটের সুতা দিয়ে এ ঘর বানানো যেতো। তবে শ্রমিক সংকট, ছনের স্বল্পতা এবং সর্বোপরি আধুনিকতার ছোঁয়ায় এ ঘর এখন বিলুপ্তপ্রায়। সারা জেলাতে ঘুরেও এ ঘরের অস্তিত্ব খুঁজে পাওয়া যাবে না। যদিও দু-একটি পাওয়া যায় তার অবস্থাও বেহাল।

এম/এস


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো সংবাদ